কপালকুণ্ডলা ওড়িশা

0

হায় প্রিয়! কি মন্ত্র মাখিয়াছে তব চাহনি!
ভুলিতে পারিনা যে অদৃশ্য তব মুখ খানি !

যে আঁখিতে চাহিলে মম বিজলিয়া চমকায়,
এই হৃদয় মম শুধু তব পানেই চায় !

কাঁড়িয়াছো এই মম নজর, কাঁড়িয়াছো মম রাত্রি ঘুম,
অন্তরে বাঁজিছে আনন্দ তোমায় লভিবার ধুম !

সংযম-সংবরণে চলিছে না মোর এ প্রাণমন
মানিছে না সংস্কার বাঁধা, হৃদয় যুদ্ধ সংকীরণ!

কাছেতে আসিলে ভাসী উচ্ছল আনন্দ জোয়ারে
এক পলক না দেখিলে ডুবি তীমির আঁধারে !

তব চরণ পরশে মরা পথও জিন্দায় জাগে,
সৌষ্ঠব নিতম্ব, পদযুগল নৃত্য করে ময়ূর ঢঙে।

তব হাসিতে রবিশশী রোশনী ঝরে, সরোবরে হাসে কুমুদ-নী !
পক্ষীকূলের কলকাকলিতে মাতাল বয় সমীরণ, সাগর জোয়ারি !

বিষাদে নামিয়া আনো মলিন বদনে কালো অমানিশা যেন জগৎ জুড়ি!

ভগ্ন এই হৃদয় শুধুই ঝরে খুন, চতুর্থত শোকছাঁয়ায় উঠে ভরি ।

ক্রোধে তব রক্তিম-বদন শিল্পীর তুলিতে ঊষার আবীর প্রভা,
চুম্বনে যেন ওষ্ঠদ্বয়ে গোধূলীর রাঙ্গা রবির লালিমার আভা ।

স্বর্ণোজ্জ্বল তব চাঁদবদনে ভূ-লুটে গগনের পূর্ণশশী !
ভ্রমে পথভ্রষ্ট প্রেম-পথিক কতজনা স্বপ্ন-ভ্রমেই ভাসী !

উতলা এ হিদয় মম ভাবিছে, কেমনে লভি চিরতর তোমায়,
চাহনিরহস্যের চাতুরি কেন, রাখিছো কি মোরে তব ভাবনায় ?

তোমা বিহনে, এ ভুবনে হায় মরিতে নাহি চাই, যদি ভাগ্যে জুটো তাই ।।

 

পড়ুন-

0
(Visited 107 times, 1 visits today)

Muhitul Islam

Author: Muhitul Islam

Related Posts

শান্তি

অনেক আগে লীগ অব নেশনস্ দূর করতে চেয়েছিলো টেনশান। কিন্তু, তারপরেও দেখেছিলো বিশ্ব জাপানের হিরোশিমা আর নাগাসাকির দৃশ্য। তারপর ১৯৪৫

আমায় মোনাজাতে রাখিয়

  চলার পথে অনেকেই হারিয়েছি বলার মতন নয় জানি না কোনদিন তাদের মত হারিয়ে যাব পার যুদি মোনাজাতে আমায় সরণ

একুশ আমার খুশি

একুশ আমার খুশি একশে দিন ভাষার মাসে ছন্দ জাগে বাংলা ভাষা অতি মিষ্টি কী যে করুণ লোহু সৃষ্টি শ্রদ্ধা মেখে

শুভ্র ভালোবাসা

মুগ্ধ দ্যুতি মনটা ঘোরে সুবাস ঝিলে সূর্য হলে জ্বলবে তুমি গাত্র হবে শীতল ভূমি ইচ্ছে হলে ঘুরতে যাব চরণ বিলে।

Leave a Reply