বাবার আবদার

0

ব্যস্ত থাকি অফিস কাজে

সন্ধ্যা নাগাদ ঘর,

এই রুটিনে চলছে-ত বেশ

জীবন নিরন্তর।

 

বাবুর স্কুলের পড়ার বোঝা

রোজকার হোমওয়ার্ক–

বন্ধু বান্ধব মিলে চলি

সামলাই নেটওয়ার্ক।

 

মা’র ঔষধ, বাবার খরচ

মাস শেষে দেই পাঠিয়ে,

চিঠি ও লেখা হয়নাত আর

সংসার নেই গুছিয়ে।

 

বাবা, মায়ের অনেক ঋন

সবই আমি বুঝি–

মাঝে সাঝে আপন মনে

তাঁদের পরশ ও খুঁজি।

 

ভাল্লাগেনা ফোনটা বাজে

মিস্‌ কলটা এলে,

সময় মত খবরত নেই

অবসরটুকু পেলে !

 

মেজাজ চড়ে, মেসেজ পড়ে

“আর কত দিন বাকি?

একটু এসে যাস না ঘুরে,

মুখটা তোর দেখি”।

 

সময় কোথায়? এত আবদার

কেনই বাবা করে?

জানিনাত অগোচরে

মায়ের অশ্রু ঝরে।

 

সেদিন রাতে চোখ জুড়ে ঘুম

মা’র ফোন রিং টোন–

“খোকা, তোর বাবার অসুখ

আমার কথা শোন!

 

একটু এসে দেখে যাবি?

জ্বরের ঘোরে ঘুমে–

চোখ খুলেনা, তোকে খুঁজে

বাবার অবুঝ মনে”।

 

“রোদ্দুরটা বেশ চড়েছে

খোকা এলো নাকি?

কতদিন জানি কেটে গেল আহা!

একটু তারে দেখি”?

 

মনটা কেমন খারাপ হল

বললাম “আসছি কাল–

থাকব দু’দিন, অফিস খোলা

ফিরব সেই বিকাল”।

 

বাঁশঝাড় ঘেরা, ঘরটা মাটির

চারপাশ চুপচাপ—

অনেকটা মাস ফিরিনি এ ভিটে

অচেনা মাটির ধাপ।

 

 

মা’গো তোমার খোকা এলো

“বাবা কেমন আছে?”

‘আয় ভেতরে, ডাকছে তোকে

বসনা বাবার কাছে’ !

 

চোখ বুজানো, ঠোঁট শুকানো

হাতটা হাতে রাখি,

“ওরে খোকা, আয়না বুকে

একটু তোরে দেখি”।

 

জীবন প্রদীপ নিভে জ্বলে

আঁধারেই বসে থাকি–

ঝিঁ ঝিঁ পোকারা ও বোবা বনে গেছে

মরনের ডাকাডাকি।

 

“দুয়ারে এসেছে যমদূত আজ

সলতে নিভেছে নাকি?

শেষ সময়ে থাক বসে বাছা—

মনটা ভরে দেখি” !!

0

MD MOINUL ISLAM

Author: MD MOINUL ISLAM

Related Posts

পেয়ারীর রায় — সুজন চন্দ্র দাস

অপরাধ করার পরও অপরাধী যতটুকু না শাস্তি পায় কাউকে সত্যিকার ভালোবেসে অধিক শাস্তি হয় পেয়ারীর রায়; মানুষ তার প্রেমেই পড়ে

ভারত মাতা- Dipankar Saha (Deep)

নমঃ নমঃ নমঃ      ভারত মাতা। তব চরণে করি     নত মাথা।। তুমি আমাদের   জন্মদাতা- এই জীবনের শক্তিদাতা।। দুঃখ
হাসপাতালের শয্যা- কবিতা

হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি  – সুজন চন্দ্র দাস

আমি হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি দিন শেষে বলি, এইতো আরো একটা দিন বেঁচে গেছি নরকের যন্ত্রণা সহ্য করে বেঁচে আছি
পঞ্চকবি, পঞ্চপান্ডব, অমিয় চক্রবর্তী, বিষ্ণু দে, বুদ্ধদেব বস্য, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, জীবনানন্দ দাস

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চপান্ডব এবং পঞ্চকবি

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চকবি এবং পঞ্চপান্ডব রয়েছে।  পঞ্চপান্ডব বলে পরিচিত কবিরা রবীন্দ্রনাথের জীবদ্দশায় রবীন্দ্র বলয়ের বাইরে গিয়ে কবিতা রচনা করেছিলেন। এই পাঁচজন

2 Replies to “বাবার আবদার”

    1. চেষ্টা করি আর কি। লেখার গভীরতাটুকু যদি কারো মনকে স্পর্শ করে তবেই আমার স্বার্থকতা। আপনাকে ধন্যবাদ !

Leave a Reply