বিষাক্ত নিনাদ

আমাকে তুমি স্বপ্ন দাও, একটা আকাশ দাও—চাদ দেখি। এই চাদ দেখে শেষ করি সমূহ সম্ভাবনা। ধূলোয় ধূসর মরিচিকা…এই জীবন; এই ক্ষন।

এইসব কারণ বাতুলতা। বিষাক্ত নিনাদ ক্লান্ত করেছে সত্মা। উন্নাসিকতার দেয়াল পেরিয়ে বন্দী —বদ্ধ জানালায়। এখানেই শুয়ে দেখি —কতটা নিষ্পাপ হলে মুক্তি পাবো মহাকাল থেকে। আমি ঢেলে দেই নর্দমায় এই তল্লাটে আছে যত অশ্লীলতা। বুকের উঠোনে চাষ করি ক্যাকটাস। আরো কিছু বিষাক্ত যাক্কুম ফল।

ভরা জোছনায় নাকি নতুন জীবনের চাষ হয়!

২.
কত আলয়ে শান্তির সুবাতাস জানালা দিয়ে আসে যায়। কিন্ত পতিতাদের আলয়ে তীব্র বিষন্নতা নৈঃশব্দের দীর্ঘশ্বাস ফেলে। একটা মানচিত্র কিনলে কি একজন সতী নারী পাওয়া যায়?

কেন নিয়ম মানো,কেন দাসত্বের জিনজিরে আটকে থাকো…স্বকীয়তা শেখো। স্বাধীনতার পতকা দিয়ে তো লজ্জা ঢাকতে পারলে না!

৩.
আসো,আমরা সমুদ্র ভ্রমন করি…লু হাওয়ায় কম্পিত করি শরীর। জ্বর উঠলে কামুক নারীর স্পর্শই ওষুধের কাজ দেয়। সমুদ্র শুধু নিঃসঙ্গতা বাড়ায়—যেমন জীববিজ্ঞান বলেছেন — পৃথিবীর সকল মানুষ এক জাতি।

(Visited 10 times, 1 visits today)
likeheartlaughterwowsadangry
0

Related Posts

নির্বোধ জাতি

আমি, তুমি, সে, ওরা, আমরা সবাই দুঃসময়ের তরবারি পড়েছে মাথায়, প্রতিদিন হয় হবে দিব শুনে চুল ঝরছে আয় কমছে প্রহর

পদ্মান্ময়

পদ্মা নদীর তীর কবুতর আর শালিকের ভীর একটুখানি আগায়ে দেখি সামনে দাঁড়ায়ে তিনটি ডিঙই আমি বল্লাম নিবি নাকি আমায় যাব

শেকড়ের টান

কবিতার নামঃ শেকরের টান কবির নামঃশেখ সাইমুম এইচ.এ = পাখীরা ছুটে চলে আকাশের ঐ দূর দূরান্তে, দিন শেষে সে ফিরে

খোকার ঘুম

  মা শোনাল গল্প কত ঘুমের দেশের গান, ঘুম ত নাই খোকার চোখে কল্প লোকের বাণ।   ঘুটঘুটে রাত তারার

Leave a Reply