Bangla Blog- Online Writing Website

আমাদের  প্রত্যেকেরই এমন অনেক কথা আছে যা আমরা সবার কাছে প্রকাশ করতে চাই। গল্প, কবিতা, উপন্যাস, প্রবন্ধ বা, যেকোন ফরম্যাটে নিজের কথাগুলোকে  লেখালেখির ওয়েবসাইট লেখক ডট মি তে প্রকাশ করতে পারেন।




লেখা খুজুন

লেখা পড়ুনঃ

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী কাকে বলে?

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চপান্ডব

খ্রিস্টান ধর্মের ইতিহাস, প্রবর্তক ইত্যাদি

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের অবদান

ইহুদি ধর্মের ইতিহাস, বিশ্বাস ও উৎপত্তি

নতুন লেখা প্রকাশ করুন

মোট লেখার সংখ্যাঃ 112  মোট মন্তব্য সংখ্যাঃ 51




পড়ুন-সর্বশেষ প্রকাশিত লেখাগুলোঃ

জেন্দাবেস্তা হচ্ছে ইরানের প্রাচীন জরুথ্রুষ্টীয় ধর্মের(বা, পারসিকদের) প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম। এটিকে অনেক সময় এভেস্তাও বলা হয় যা লেখা হয়েছে এভেস্তিয়ান
'মালাউন' শব্দটি বাঙ্গালি হিন্দুদের ক্ষেত্রে ঘৃণাসূচক শব্দ হিসেবে প্রয়োগ করতে দেখা যায়। এটি ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী একটি অপরাধ কর্ম(কেন সেই
মোট চারটি বেদের অর্থাৎ ঋগ্বেদ, সামবেদ, যজুর্বেদ এবং অথর্ববেদ এর ডাউনলোড লিংক আমরা দিয়ে দেবো। আপনারা এখান থেকে ডাউনলোড করে
শিন্টো ধর্ম বহুঈশ্বরবাদী একটি ধর্ম। শিন্টো শব্দের অর্থ দেবতার পথ। এই ধর্মে সৃষ্টিকর্তাকে বলা হয় কামি। অসংখ্য স্রষ্টার অস্তিত্ব আছে
নাস্তিকতাবাদ বলতে আমরা এমন মতবাদকে বুঝি যেখানে ঈশ্বরের বা, কোন সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ব স্বীকার করা হয় না। এর বাইরে আরো কতগুলো
যিশু খ্রিস্ট
যিশুকে বলা হয় নাজারাথের যিশু। খ্রিস্ট ধর্মের অনুসারীরা তাকে ঈশ্বরের পুত্ররূপী ঈশ্বর এবং মেসিয়াহ মনে করেন। তিনিই খ্রিস্ট ধর্মের কেন্দ্রীয়
বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন চর্যাপদ লেখা হয়েছে সপ্তম থেকে দ্বাদশ শতাব্দির মধ্যে। এই সময়ে বাংলায় পাল রাজাদের রাজত্ব ছিল। পাল
ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর এর প্রকৃত নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দোপাধ্যায়। তবে, তিনি স্বাক্ষর করতেন ঈশ্বরচন্দ্র শর্মা নামে। বিদ্যাসাগর উপাধিটি সংস্কৃত ভাষা ও সাহিত্যে