টুইটার একাউন্ট

কিভাবে টুইটার একাউন্ট খুলতে হয়?

আপনি চাইলে আলাদা ইমেইল এড্রেস ব্যবহার করে একাধিক টুইটার একাউন্ট খুলতে পারবেন। কিভাবে খুলতে হয় সেটি ধাপে ধাপে বর্ণনা করবো। আপনার পার্সোনাল একাউন্টের পাশাপাশি বিজনেস একাউন্ট খোলার জন্যও একই পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন।

টুইটারে যত বেশী একটিভ থাকবেন, তত বেশী জনপ্রিয় হতে পারবেন। প্রতিদিন ৩০ মিনিট সময় দিলেই চলবে। আর, যদি শুধু নিজের বন্ধুবান্ধব পরিচিতজনদের সাথে যোগাযোগ রাখতে চান, তাহলে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে ব্যবহার করলেই চলবে।

টুইটার একাউন্ট এর জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন

ওয়েবসাইটের ঠিকানা হচ্ছে twitter.com. এখান থেকে ভিজিট করে ধাপগুলো অনুসরণের মাধ্যমে নিজের একটি একাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন-

ধাপ ১ঃ twitter.com ভিজিট করে হোমপেজ থেকে Sign Up বাটনে ক্লিক করুন

ধাপ ২ঃ এবারে একটি ফর্ম আসবে। সেখানে Username, Date of Birth, email account অথবা, ফোন নম্বর ইত্যাদি। ঠিকঠাকমতো সব পূরণ করুন। আর, একটা কথা- Username যত ছোট হয় ততোই ভালো, এটি আপনার প্রফাইলকে নির্দেশ করবে তাই একটু চিন্তাভাবনা করে ছোট একটি Username বেছে নেবেন। ফর্ম পূরণের পালা শেষে Next এ ক্লিক করুন।

ধাপ ৩ঃ কিভাবে বিজ্ঞাপন দেখতে চান সেটা বেছে নিয়ে Next এ চলে যান

ধাপ ৪ঃ এবার Create and Account এ ক্লিক করুন, ৯০% কাজ শেষ। এবারে আপনার ইমেইল বা, ফোন নম্বরে ভেরিফিকেশন কোড যাবে। ঐ কোডটি দিয়ে কনফার্ম করুন।

ধাপ ৫ঃ এবারে ৮ অক্ষরের পাসওয়ার্ড দিন। সংখ্যা এবং বর্ণ এই দুইটার কম্বিনেশন রাখার চেষ্টা করবেন। তাহলে পাসওয়ার্ড শক্তিশালী হবে। অনেকে আবার নিজের পাসওয়ার্ড ভুলে যায়, নিজেই মনে রাখতে পারবেন না এমন পাসওয়ার্ড ব্যবহারের কোন যৌক্তিকতা নাই।

ধাপ ৬ঃ একটি ছবি যোগ করে ফেলুন। সেটিং পেজের উপরে ফটো ট্যাব দেখতে পাবেন। নিজের একাউন্টের জন্য নিজের ছবি। ব্রান্ড একাউন্টের জন্য ব্রান্ডের লোগো ব্যবহার করুন।

ধাপ ৭ঃ আপনাকে Yahoo, Gmail বা, Outlook এর মাধ্যমে আপনার সেভ করা ইমেইল এড্রেস import করার অপশন দেবে। চাইলে এই লিস্ট সেখান থেকে import করার মাধ্যমে আপনার পরিচিতজনদের খুজে পেতে পারেন।

ধাপ ৮ঃ সব শেষে আপনার একাউন্টে আরো যত তথ্য যোগ করা যায় সব তথ্য যোগ করে ফেলুন। ওয়েবসাইটের ঠিকানা, ছোট বর্ণনা, প্রফাইলের নাম ইত্যাদি।

এবারে ব্যবহার করতে থাকুন, সেলিব্রেটি, বন্ধুবান্ধবদের ফলো করুন, টুইট করুন।

টুইটার ব্যবহারের নিয়ম

এখন ১৪০ শব্দের বেশী শব্দে টুইট করা যায় যা আগে যেত না। এরপরেও অনেক বেশী শব্দ লেখা যায় না। ছবি এবং ভিডিও শেয়ার করা যায়। অনেকেই কিছু শর্টকার্ট লেখা ব্যবহার করে থাকেনযেমনঃ b/c = because, BFN = bye for now, BTW = by the way, EM = email, FB = Facebook ইত্যাদি।

এছাড়া বড় লিংক দিলে বাজে দেখায়, তাই লিংক ছোট করে নিতে অনেকেই পছন্দ করেন। এজন্য আপনিও কোন লিংক শেয়ার করার আগে কোন link shortener ব্যবহার করতে পারেন। bitly, is.gd, rebrandly ইত্যাদি সাইটের মাধ্যমে এগুলো ব্যবহার করা যায়।

আগেও বলেছি, যত বেশী একটিভ থাকবেন আপনার টুইটের ইম্প্রেসন তত বাড়বে। তাই যারা বেশী একটিভ থাকে তাদের ফলোয়ার বেশী থাকে। আকর্ষণীয় টুইটগুলোতেও বেশী ভিউ মেলে। ছবি এবং ভিডিও শেয়ারের মাধ্যমে টূইটের বৈচিত্র আনতে পারেন।

টুইটার একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম

ছোট কয়েকটি ধাপে বলে দিচ্ছি কিভাবে একাউন্ট ডিলিট করা যায়। অনেক সময় সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট আমাদের ভালো লাগে না, এছাড়া ডিলিট করার নানারকম কারণ থাকতে পারে। শুরু করি-

  • লগ ইন করে প্রফাইল আইকনে ক্লিক করুন
  • এবারে যে মেনু দেখাচ্ছে সেখান থেকে সেটিং এ যান
  • স্ক্রল করে নিজের দিকে দেখুন- Deactivate My Account দেখতে পাবেন
  • এবারে Deactivate লেখায় ক্লিক করে Username আর পাসওয়ার্ড দিন
  • OK দিয়ে কনফার্ম করে দিন। হয়ে গেলো।

৩০ দিন সময় পাবেন একাউন্ট ফিরিয়ে আনার। ৩০ দিনের মাঝে মত না বদলালে একাউন্ট আজীবনের জন্য ডিলিট হয়ে যাবে।

(Visited 22 times, 1 visits today)
0
likeheartlaughterwowsadangry
0

Related Posts

বাংলা ব্লগিং

ব্লগ তৈরি করার নিয়ম

ব্লগ তৈরির নানারকম টিউটোরিয়াল এবং নিয়ম অনলাইনে পাওয়া যাবে, অবশ্যই সেগুলোর মাঝে অনেক লেখাই আপনার উপকারে আসবে। তাদের ভেতর কেউ
বাংলাদেশের সেরা হোস্টিং কোম্পানি

বাংলাদেশের সেরা হোস্টিং কোম্পানি

বাংলাদেশের হোস্টিং কোম্পানি নিয়ে কথা বলছি এবং তাদের মাঝে সেরা প্রভাইডারকে খুজে বের করার চেষ্টা করছি কারণ, এইসব সাইটে বিকাশ
টরেন্ট সাইট কিভাবে কাজ করে?

টরেন্ট সাইট কিভাবে কাজ করে?

টরেন্ট সাইট নিয়ে বলার আগে প্রথমেই বলে নেই টরেন্ট কি এরপর বলব টরেন্ট কিভাবে কাজ করে। আমরা যখন কোন কিছু

Leave a Reply