‘’অচেনা পথিক’’

0

“পথিক তুমি চলেছ কোথায়

কোন পাড়াতে ঘর,

একটু জিরোও, পথ বন্ধুর

কে বা আপন,পর?

 

স্রোতস্বিনী নদীর মত

চলছি অবিরাম–

আজন্ম মোর এই নিয়তি

বলছ কেন থাম?

 

‘’কে তুমি পথিক মুখ চিনিনা

কাদের বাড়ী যাবে—‘’

ঘর চিনিনা, যাই বহুদুর

পথেই আমায় পাবে।

 

যুগ যুগান্তর সকল কালে

আমার বিচরন,

এই পৃথিবীর জন্ম হতে

চলছে পরিভ্রমন।

 

জীবনের কত হল অবসান

মৃত্যুর আলিঙ্গনে

নবজাতকের হয় আগমন

মমতার বন্ধনে।

 

জাতি, গোত্র, গোষ্ঠী, রাজ্য

এল, গেল চুপিসারে—

প্রতি সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে

হেটেছি বারে বারে।

 

দিন কি বা রাত, নেই

বিশ্রাম মোর , ছুটছি অবিরত

প্রতি সংসারে পেতেছি আসন

আপন মানুষের মত।

 

‘’অজানা পথে কোথা যাও তুমি

কে পথ চেয়ে আছে তোমারে?’’

আকাশ সীমান্ত, আছি সর্বত্র

মহাকাশ, অকূল পাথারে।

 

এই জনমের চলমান বেগ

নিঃশেষ হয়ে গেলে–

পরজগতের অনন্ত লোকে

থাকব আমি ও—সেই কালে।

 

‘‘অচেনা পথিক, কে তুমি গো?

কেন কর অভিনয়?’’

আপন বলে কিছু নেই মোর

আমি- বিধাতার পরিচয়।

 

তোমাদের কাছে চেনা মুখ আমি

পাশে থাকি সব সময়,

দিনলিপি আর, হিসেবের মাপে

চির অক্ষয়- আমি “সময়”।

 

আরো পড়ুন-

0

MD MOINUL ISLAM

Author: MD MOINUL ISLAM

Related Posts

পেয়ারীর রায় — সুজন চন্দ্র দাস

অপরাধ করার পরও অপরাধী যতটুকু না শাস্তি পায় কাউকে সত্যিকার ভালোবেসে অধিক শাস্তি হয় পেয়ারীর রায়; মানুষ তার প্রেমেই পড়ে

ভারত মাতা- Dipankar Saha (Deep)

নমঃ নমঃ নমঃ      ভারত মাতা। তব চরণে করি     নত মাথা।। তুমি আমাদের   জন্মদাতা- এই জীবনের শক্তিদাতা।। দুঃখ
হাসপাতালের শয্যা- কবিতা

হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি  – সুজন চন্দ্র দাস

আমি হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি দিন শেষে বলি, এইতো আরো একটা দিন বেঁচে গেছি নরকের যন্ত্রণা সহ্য করে বেঁচে আছি
পঞ্চকবি, পঞ্চপান্ডব, অমিয় চক্রবর্তী, বিষ্ণু দে, বুদ্ধদেব বস্য, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, জীবনানন্দ দাস

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চপান্ডব এবং পঞ্চকবি

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চকবি এবং পঞ্চপান্ডব রয়েছে।  পঞ্চপান্ডব বলে পরিচিত কবিরা রবীন্দ্রনাথের জীবদ্দশায় রবীন্দ্র বলয়ের বাইরে গিয়ে কবিতা রচনা করেছিলেন। এই পাঁচজন

Leave a Reply