চট্টগ্রামের ফয়েস লেক- লেখক ডট মি

পর্যটন স্থান ফয়েস লেক

0

বাংলাদেশের চট্টগ্রামে অবস্থিত ফয়স লেক একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান যা এর নির্মল সৌন্দর্য, উত্তেজনাপূর্ণ জলক্রীড়া এবং পরিবার-বান্ধব পরিবেশের জন্য পরিচিত। হ্রদটি একটি মানবসৃষ্ট জলাধার যা 1924 সালে ব্রিটিশরা চট্টগ্রামের বাসিন্দাদের জল সরবরাহ করার জন্য তৈরি করেছিল। আজ, এটি শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় স্থানগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠেছে, প্রতি বছর হাজার হাজার দর্শককে আকর্ষণ করে৷

এই প্রবন্ধে, আমরা ফয়স লেকের একটি গভীর দৃষ্টিভঙ্গি দেখব, এর ইতিহাস, আকর্ষণ এবং এলাকায় করণীয় বিষয়গুলি অন্বেষণ করব।

ফয়স লেকের ইতিহাস

উল্লিখিত হিসাবে, ফয়স লেকটি 1924 সালে ব্রিটিশরা চট্টগ্রাম শহরের জলাধার হিসেবে তৈরি করেছিল। এটির নামকরণ করা হয়েছে রেলওয়ে প্রকৌশলী যিনি এর নির্মাণ তদারকি করেছিলেন, মিঃ ফয়। বছরের পর বছর ধরে, হ্রদটি পিকনিক, মাছ ধরা এবং বোটিং এর জন্য একটি জনপ্রিয় গন্তব্য হয়ে উঠেছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) ফয়স লেকের আশেপাশের এলাকা আধুনিকায়নের পদক্ষেপ নিয়েছে। তারা আরও দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করার জন্য একটি শিশু পার্ক, একটি মিনি-চিড়িয়াখানা এবং একটি মিউজিক্যাল ফাউন্টেন তৈরি করেছে। সিডিএ জেট স্কি এবং প্যাডেলবোট সহ জল ক্রীড়ার জন্য সুবিধাও স্থাপন করেছে।

ফয়স লেকের আকর্ষণ

ফয়স লেকের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ হল ওয়াটার স্পোর্টস। দর্শনার্থীরা জেট স্কিস বা প্যাডেলবোট ভাড়া করে লেকের শান্ত জল ঘুরে দেখতে পারেন। যারা আরও আরামদায়ক অভিজ্ঞতা খুঁজছেন তাদের জন্য মাছ ধরা এবং বোটিং করার সুবিধাও রয়েছে।

আরেকটি জনপ্রিয় আকর্ষণ হল শিশু পার্ক, যেখানে সব বয়সের বাচ্চাদের জন্য বিভিন্ন ধরনের রাইড এবং গেম রয়েছে। মিনি-চিড়িয়াখানাটি পরিবারগুলির সাথেও একটি হিট, যা বিভিন্ন স্থানীয় এবং বহিরাগত প্রাণীদের প্রদর্শন করে।

মিউজিক্যাল ফাউন্টেন ফয়স লেকের অভিজ্ঞতার একটি হাইলাইট। এটি আলো এবং জলের একটি রঙিন প্রদর্শন যা সঙ্গীতে নাচে। দর্শকরা প্রতি সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানটি বিনামূল্যে উপভোগ করতে পারবেন।

কম খরচে ফয়েস লেক ভ্রমণের আইডিয়া পেতে এই ভিডিওটি দেখতে পারেন-

এলাকায় করণীয় জিনিস

ফয়স লেকের আকর্ষণগুলি ছাড়াও, এই অঞ্চলে করার মতো আরও অনেক কিছু রয়েছে। সবচেয়ে জনপ্রিয় হল কাছাকাছি বাটালি পাহাড়ে যাওয়া, যা শহর এবং বঙ্গোপসাগরের অত্যাশ্চর্য দৃশ্য দেখায়। পাহাড়ে একটি বৌদ্ধ মন্দির এবং হিন্দু দেবী কালীকে উৎসর্গ করা একটি উপাসনালয়ও রয়েছে।

আরেকটি জনপ্রিয় আকর্ষণ হল চট্টগ্রাম নৃতাত্ত্বিক জাদুঘর, যেটি প্রদর্শনী ও শিল্পকর্মের মাধ্যমে এই অঞ্চলের ইতিহাস ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরে। দর্শনার্থীরা বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী সম্পর্কে জানতে পারে যারা চট্টগ্রামকে বাড়ি বলে এবং জাদুঘরের মৃৎশিল্প, বস্ত্র এবং বাদ্যযন্ত্রের বিস্তৃত সংগ্রহ অন্বেষণ করতে পারে।

যারা ইতিহাসে আগ্রহী তাদের জন্য ওয়ার সিমেট্রিতে যাওয়া আবশ্যক। কবরস্থানটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মারা যাওয়া 700 টিরও বেশি কমনওয়েলথ সৈন্যদের জন্য চূড়ান্ত বিশ্রামের স্থান। এটি আমাদের স্বাধীনতা সুরক্ষিত করার জন্য অনেকের ত্যাগের একটি মর্মস্পর্শী অনুস্মারক।

উপসংহার

ফয়স লেক চট্টগ্রামের প্রাণকেন্দ্রে একটি সত্যিকারের রত্ন। এর শান্ত জল, উত্তেজনাপূর্ণ জল খেলাধুলা এবং পরিবার-বান্ধব আকর্ষণগুলি এটিকে যেকোনও ব্যক্তির জন্য একটি অবশ্যই দেখার গন্তব্য করে তোলে

 


আরো দেখুন-


56
বিজ্ঞাপনঃ মিসির আলি সমগ্র ১: ১০০০ টাকা(১৪% ছাড়ে ৮৬০)

0

Ashrafull Alam

Author: Ashrafull Alam

Travel Blogger

নিচের লেখাগুলো আপনার পছন্দ হতে পারে

শুধু তুমি

তোমার মত কেহ নাই তাইতো আমি তোমায় চাই তুমি আমার আপনজনা, ভাই, ভাই, ভাই।   যে জন তার আপনজনা ভালবাসে

মৃত্যু (৯) (প্রেমের কবিতা)

আমি একজনকে ভালবাসি।একদিন বললাম, এত বেশি ভালবেসোনা এত বেশি ভালবাসলে আমি মরে যাব। বলে তুমি মরে যাও আমি তো সেটাই

কাল কটি

কাল কোটওয়ালাদের কেনা ভালবাসে?  কাল কোটওয়ালাদের সবাই ভালবাসে।আমি একদিন এক কালকোটওয়ালীকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, এই তুমি কেমন আছ? বলে, কেন ভাল

আল্লাহ (১৭)

আল্লাহ আল্লাহ কর ভাই আল্লাহ ছাড়া উপায় নাই না গাহিলে কি হবে? জাহান্নামে হবে ঠাঁই যাই,সেই কথাটি বলে যাই।  

One Reply to “পর্যটন স্থান ফয়েস লেক”

Leave a Reply