শান্তি

0অনেক আগে লীগ অব নেশনস্ দূর করতে চেয়েছিলো টেনশান। কিন্তু, তারপরেও দেখেছিলো বিশ্ব জাপানের হিরোশিমা আর নাগাসাকির দৃশ্য। তারপর ১৯৪৫ এর অক্টবরে গঠিত হলো জাতিসংঘ শান্তির বার্তা নিয়ে। ভেবেছিলাম শান্তি থাকবে বজায়, কিন্তু কী হলো সিরিয়ায়! কেন হলো ১৯৪৭ এর ভারতবর্ষ শাষন? কেন হলো মিয়ানমারে রহিঙ্গা অপসারণ? কেন কাদঁছে ফিলিস্তিনের শিশু? তাহলে কোথায় গেল শান্তি?

আমায় মোনাজাতে রাখিয়

0  চলার পথে অনেকেই হারিয়েছি বলার মতন নয় জানি না কোনদিন তাদের মত হারিয়ে যাব পার যুদি মোনাজাতে আমায় সরণ রাখিয়।। ঘর থেকে কবরের পথে দ্রুত যেয় সমাধির শেষে কবরের উপর খেজুরের ডাল দিয় সব শেষে মোনাজাতে আমার নাম ধরে পরপারে শান্তির কামনা করিয়।। পৃথিবীতেকে নেওয়ার কিছু নাই তাই আজ খালি হাতে যাই জগত বাসী

একুশ আমার খুশি

0একুশ আমার খুশি একশে দিন ভাষার মাসে ছন্দ জাগে বাংলা ভাষা অতি মিষ্টি কী যে করুণ লোহু সৃষ্টি শ্রদ্ধা মেখে সুপ্তি জাগে উষার আগে। অন্ধ ভোরে ওড়াল দিয়ে রঙ মাখিয়ে রক্তজবা সবুজ বোঁটা শুভ্র কালো জামায় ছোটা পুলকে মন ডানায় ভরা শোক আঁকিয়ে। সজীব রেশে পুষ্প হাতে আমার খুশি শোচন বাহী আটকে রাখি বুকের কোণে

শুভ্র ভালোবাসা

1মুগ্ধ দ্যুতি মনটা ঘোরে সুবাস ঝিলে সূর্য হলে জ্বলবে তুমি গাত্র হবে শীতল ভূমি ইচ্ছে হলে ঘুরতে যাব চরণ বিলে। বারিৎ হলে তরি হইয়ো লহর ভেসে সুখ লগনে নিশি তখন চাঁদিমা ভান এষা তখন মায়া আলোয় লোহু ক্ষরণ আবেশ ঘেঁষে। উতল বীচি পৌঁছে দেবে প্রভাত ঘোরে শুভ্র প্রীতি অমর হবে অদ্রি তাপে জ্বলন রবে সিত

ধিক্কার

0  পেটে আজ বড্ড ক্ষুদা কি যে করি একটু খাবার আশায় খুঁজে ফিরি ভেঙে তাই লকডাউনের নিয়ম শর্ত চলে যাচ্ছি অন্যত্র । যেথায় খাবার মিলবে যত্রতত্র। সেথায় গিয়ে দেখি একি অবস্থা খাবারের নাই কোনো ব্যাবস্থা । নিজের পেটের ক্ষুদা সামলে নিলেও পারি নাহি সন্তানকে অভুক্ত রাখতে , একটু খাবারের আশায় তাই আমি লকডাউন নিয়ম ভাঙ্গি।

আমিও আজ দোষী

2একদিন সবাই মিলে আমাকে দোষী ঘোষনা করলো, তখন আমি অট্টহাসি হাসলাম নীরবে। আমি নাকি সবাইকে বেমালুম ভুলে গেছি, আমি নাকি আরাম প্রিয় হয়ে গেছি। তাদের ঘোর এই অভিমানে, করেছে আমাকে অভিযোগ দেওয়া হয়নি আমাকে কোনো সুযোগ তাইতো সবার চাওয়াতে আমাকে দেওয়া হলো মৃত্যুদন্ড । আজ আমাকে আর কেউ চায় না , আমার সকল কিছু আজ

তবুও স্বপ্ন দেখি

0আর কত এভাবে থাকবো, সবগুলো চাওয়া পাওয়া রেখে হয়ে যাব নিঃস্ব । কেনইবা লাগে পৃথিবীটা আজ শূন্য আজ যেন মিথ্যে সব আশা , সবার ভিড়ে দিন শেষ আমি একা কষ্ট গুলো আজ যত্নে লালন করছি জীবনের হিসেবে আজ ইতি টানছি কত রাত জেগে থেকে, স্মৃতির কাতারে ভেসে বেঁচে আছি আমি খুব কষ্টে সুখ দিলোনা ধরা

ভালোবাসি তোমাকে

1 তোমার কাছে আমি রয়ে গেলাম চির অচেনা হয়ে উঠে নি আজও চেনা সেদিন বলেছিলে তোমার পাশেও নাকি আমি বড্ড বেমানান সেদিনও আমি বলিনি কিছু ডাকিনি তোমাকে আর পিছু সেদিন তুমি হারিয়ে গেলে দূরের অচিন পথে, খুঁজেছিলাম তোমায় তবুও পাইনি আমি খুঁজে আমার ভেজা চোখে ,এড়িয়ে গিয়েছিলে কোনমতে, মিশে গিয়েছিলে তারার আঁধার রাতে, খুঁজে পাইনি

মেহেদী পাতায় লেখা অভিমান

1রাঙ্গিয়ে দিবে কি আমার দু হাত মেহেদী পাতার রঙ্গে , আমিও আজ সাঁজবো নানান ঢংগে । আসছে যে ঈদ , তুমি কথা দিয়েছিলে এবার ঈদে নাকি রাঙ্গিয়ে দিবে আমায় মেহেদী পাতার রঙ্গে , আমি তো হাজারবার বহুবার প্রতিক্ষায় আছি এই দিনটার, জানো নিজেকে আজকাল বড্ড বেশী একা মনে হয় মেহেদী পাতায় আড়াল করে রাখতে ইচ্ছে

কালো মেয়ে

1বহুদিন হয়ে গেলো আয়নায় নিজের চেহারাটা ঠিকঠাক মতো দেখা হয়নি , চুল গুলো উষ্কখুষ্ক, বাতাসে যেন উড়ছে ঠোঁটে লিপস্টিক টাও অনেক দিন দেওয়া হয়নি , বহুকাল কপালে নীল টিপ পরা হয়নি, টিপ টাও পরে আছে অবহেলায় দুচোখে আজ আর কাজলের রং নেই; সেটাও আজ মিশে গেছে চোখের জলে । একটা সময় সাঁজতাম যখন নিজের মত