বিলুপ্তি ও দুর্যোগ : প্রাকৃতিক পরিবর্তন ও ষষ্ঠ বিলুপ্তির পথে পৃথিবী

play icon Listen to this article
0

 

 

 

 

বিলুপ্তি ও দুর্যোগ : প্রাকৃতিক পরিবর্তন ও ষষ্ঠ বিলুপ্তির পথে পৃথিবী

০৫ ই জুন বিশ্ব প‌রি‌বেশ দিবস পৃ‌থিবীজু‌ড়ে পা‌লিত হ‌য়ে থা‌কে । কিন্তু প‌রিবেশ সুন্দর ও বসবাস‌যোগ্য রাখা আমা‌দের যেমন দা‌য়িত্ব তেম‌নি প‌রি‌বে‌শের ভারসাম্য স‌ঠিক রাখাও আমা‌দের একান্ত দা‌য়িত্ব । পৃ‌থিবীর প‌রি‌বেশ দিন দিন আমা‌দের কার‌ণে হুম‌কির স্বীকার হ‌চ্ছে। মানব ইতিহা‌সে প‌রি‌বেশ বিপর্য‌য়ের ঘটনা অ‌নেকবার ঘ‌টে‌ছে , ঘ‌টে‌ছে বিলু‌প্তির মত ঘটনা । তার ম‌ধ্যে প্রাকৃ‌তিকভা‌বে স্রস্টার ইচ্ছায় যেমন বিলু‌প্তি ঘ‌টে‌ছে তেম‌নি মানুষ দ্বারাও সৃ‌স্টি হ‌য়ে‌ছে ‌বিলু‌প্তি । নি‌চে বিশদ বর্ণণা করা হল ।

——————————————————–

বিলুপ্তিশব্দটার অর্থ নিশ্চয়ই আমাদের জানা আছে কোনো প্রাণী পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে বলতে বোঝায়, প্রজাতির শেষ প্রাণীটিও মৃত্যুবরণ করেছে এরকম বিলুপ্তি যখন ব্যাপক আকারে ঘটে, তখন তাকে গণবিলুপ্তি বলা হয় পৃথিবীর অধিকাংশ প্রাণীর বিলুপ্তি হয়েছে এই বড় আকারের বিলুপ্তির সময়গুলোতেই সাধারণত, প্রতি লক্ষ বছরে কেবল হাতেগোনা কিছু প্রাণীর বিলুপ্তি ঘটে কিন্তু একেকটি গণবিলুপ্তির সময়েই পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে যায় হাজারো প্রাণী পৃথিবীতে আজোবধি যত সংখ্যক প্রাণীর পদচারণা হয়েছে, দুঃখজনকভাবে তার ৯৯ শতাংশই বিলুপ্ত হয়ে গেছে!

মানুষের দ্বারা লিখিত ইতিহাস মাত্র কয়েক হাজার বছরের হলেও পৃথিবীর ইতিহাস ৪৬০ কোটি বছরের। এই দীর্ঘ সময়ের পরিক্রমায় আমাদের জানা একমাত্র বসবাসযোগ্য এই গ্রহে বিচরণ করেছে লক্ষ লক্ষ প্রজাতির প্রাণী। কিন্তু কালের মহাস্রোতে হারিয়ে গেছে তাদের ৯৯ শতাংশই। এই মহাস্রোতের কিছু সময় ছিল, যখন সময় চোরাবালিতে রূপ নেয় আর পৃথিবীর প্রাণীকূল অসহায়ের মতো সেই চোরাবালিতে চিরতরে হারিয়ে যায়। নির্দিষ্ট করে বললে, ইতিহাসে ঠিক পাঁচবার সময়ের মহাস্রোত এরূপ চোরাস্রোতে পরিণত হয়েছিল, যে স্রোতগুলো পৃথিবীর প্রাণীবৈচিত্র্য একপ্রকার ধ্বংসই করে দিয়েছে। আর গণবিলুপ্তির এরূপ চোরাস্রোত সৃষ্টির পেছনে মূল নিয়ামকের ভূমিকা পালন করেছে প্রকৃতিই। কখনো বৃহৎ আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত, বড় আকারের ভৌগোলিক পরিবর্তন, জলবায়ু পরিবর্তন কিংবা বড় বড় উল্কা পতনই ঘটিয়েছিল এসব গণবিলুপ্তি

তবে, গণবিলুপ্তি একদিকে বৈচিত্র্য ধ্বংস করলেও আরেকদিকে বৈচিত্র্য তৈরির কাজও করে। ইতিহাসে প্রতিটি গণবিলুপ্তির পরই প্রকৃতিতে খুব দ্রুতস্পেসিয়েশনবা প্রজাত্যায়ন এবং বিবর্তন ঘটতে দেখা গেছে। সাধারণত, প্রতিটি গণবিলুপ্তির পর প্রকৃতির বিভিন্ন বাস্তুসংস্থানে অসংখ্য শূন্যস্থান তৈরি হয়। বিপর্যয়ে বেঁচে যাওয়া অল্প সংখ্যক প্রাণীগুলো তখন সেই শূন্যস্থান নিতে চেষ্টা করে। ফলে একই প্রজাতির প্রাণী যেখানে পূর্বের অবস্থায় বাধ্য হয়ে সীমিত স্থানে, সীমিত খাদ্যের উপর ভিত্তি করে বেঁচে ছিল, তারাই একটি গণবিলুপ্তির পর নিজেদের মেলে ধরার সুযোগ পেয়ে অন্যদের রেখে যাওয়া স্থান এবং খাদ্যশৃঙ্খল কব্জা করে। খাদ্যের জন্য, বাসস্থানের জন্য, শিকারের জন্য, সবকিছুর জন্যই এসময় প্রতিযোগিতা থাকে সর্বনিম্ন। ফলে অবশিষ্টরা স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকতে সক্ষম হয় এবং বাস্তুসংস্থানের বিভিন্ন শূন্যস্থান পূরণ করতে গিয়ে নিজেদের স্বভাববিরুদ্ধ কাজকর্মে লিপ্ত হয়। সেসব কাজ করতে গিয়ে তাদের আচার আচরণ আর দৈহিক গঠনে ধীরে ধীরে পরিবর্তন আসে, ঘটে চলে বিবর্তন, সৃষ্টি হয় নতুন নতুন প্রজাতির। বিবর্তনের ধারা অত্যন্ত মন্থর হলেও, প্রতিটি গণবিলুপ্তি পরবর্তী সময়ে বিবর্তন ঘটেছে বেশ দ্রুত

 গণবিলুপ্তিতে পৃথিবী থেকে হারিয়ে গিয়েছিল ডাইনোসরের সকল প্রজাতি

বিজ্ঞানীরা সাম্প্রতিককালে বারংবার মনে করিয়ে দিচ্ছেন যে পৃথিবীতে ঘটে যাওয়া আগের ৫টি গণবিলুপ্তির মতো আরো একটি গণবিলুপ্তির প্রক্রিয়া চলছে। এখনই সতর্ক না হলে ঘটতে পারে ষষ্ঠ গণবিলুপ্তির ঘটনাটিও। তবে আজকের আলোচনায় ষষ্ঠ গণবিলুপ্তির কথা থাকছে না। আজকে বরং চলুন সংক্ষেপে পরিচিত হই ইতিহাসের মর্মান্তিক পাঁচটি গণবিলুপ্তির সাথে

. ওর্ডোভিসিয়ান গণবিলুপ্তি

পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথম গণবিলুপ্তির ঘটনাটি ঘটে ৪৪০ মিলিয়ন বছর পূর্বে পালেওজয়িক বা পুরাজীবীয় যুগে। এই গণবিলুপ্তিতে সে সময় পৃথিবীতে অস্তিত্ববান প্রাণীগুলোর ৮৫ শতাংশই ধ্বংস হয়ে যায়। সে সময়ও পৃথিবীতে জীবজগৎ পৃথিবীতে পুরোপুরি বিকাশ লাভ করতে পারেনি। তথাপি, প্রথম প্রাণের সঞ্চার ঘটেছিল ওর্ডোভিসিয়ান যুগের ৩০০ কোটি বছরেরও অধিক সময় আগে। পালেওজয়িক যুগের ওর্ডোভিসিয়ান কালে প্রবেশ করতে করতে ততদিনে সামুদ্রিক প্রাণীজগত প্রায় পুরোপুরি বিকশিত হবার পথে ছিল। এমনকি ভূমিস্থ প্রাণিজগতও বিকাশ লাভ করতে শুরু করেছিল পুরোদমে। কিন্তু তখনই এক ভয়াবহকন্টিনেন্টাল ড্রিফটবা মহীসঞ্চরণে সব এলোমেলো হয়ে যায়। জলবায়ুতে রাতারাতি আসে চূড়ান্ত পরিবর্তন, যা তখনো বিকাশ লাভ করতে থাকা প্রাণীকূলের সহনশীলতার মাত্রা ছাড়িয়ে যায়

 ওর্ডোভিসিয়ান গণবিলুপ্তির যুগের স্থলভাগে প্রাণীদের বসবাস শুরু হয়

ওর্ডোভিসিয়ান গণবিলুপ্তি দুটি ধাপে ঘটে। প্রথম ধাপে পৃথিবীতে শুরু হয় এক দীর্ঘ বরফের যুগ, যখন সমগ্র পৃথিবীর আবহাওয়া অত্যধিক শীতল হয়ে যায়, জলভাগের অধিকাংশ বরফ হয়ে যাওয়া পানির স্তর নিচে নেমে যায়। এসময় স্থলভাগের সকল প্রাণীর মৃত্যু হয়, মরে যায় অসংখ্য সামুদ্রিক প্রজাতিও। কিন্তু বরফের যুগের সমাপ্তিও কোনো অংশে স্বস্তিদায়ক ছিল না জলভাগের অবশিষ্ট বেঁচে থাকা প্রাণীদের জন্য। বরফ যুগের সমাপ্তি এতো দ্রুত ঘটেছিল যে দীর্ঘকাল তীব্র ঠাণ্ডায় বেঁচে থাকা প্রাণীগুলো অভিযোজনের সময় পর্যন্ত পায়নি। এমনকি, দ্রুত বরফ গলে সমুদ্রের পানির স্তর ততোধিক দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি পেলে পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণও স্বাভাবিক মাত্রায় রক্ষিত হয়নি ধাপে সমুদ্রের প্রাণীকূলও অধিকাংশই বিলুপ্ত হয়। বেঁচে থাকতে সক্ষম হয় কেবল কিছু সামুদ্রিক অটোট্রফ

. ডেভোনিয়ান গণবিলুপ্তি

ওর্ডোভিসিয়ান গণবিলুপ্তিই পালেওজয়িক যুগের শেষ জীব বিপর্যয় ছিল না। আরো দুটি বিপর্যয় তখনো বাকি। এর একটি ঘটেছিল যুগের ডেভোনিয়ান পর্যায়ে। প্রথম গণবিলুপ্তির পর এই দ্বিতীয় গণবিলুপ্তিটি ঘটেছিল অপেক্ষাকৃত দ্রুততর সময়ের ব্যবধানে। আনুমানিক ৩৭৫ মিলিয়ন বছর আগে ঘটেছিল ডেভোনিয়ান গণবিলুপ্তি, যা প্রথম মহাবিলুপ্তি থেকে মাত্র ৬৫ মিলিয়ন বছর পরের সময়। ওর্ডোভিসিয়ান গণবিলুপ্তির ধ্বংসাবশেষ থেকে প্রাণীকূল তখনো বিকাশলাভের প্রাথমিক পর্যায়েই রয়ে গিয়েছিল। এরই মাঝে ডেভোনিয়ান গণবিলুপ্তি ঘটলে পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যায় ৮০ ভাগ জলজ স্থলজ প্রাণী

ডেভোনিয়ান গণবিলুপ্তির সুনির্দিষ্ট কারণ বিজ্ঞানীরা নির্ধারণ করতে না পারলেও এই মহাবিলুপ্তিটিও দুই ধাপে সম্পন্ন হয়। প্রথম ধাপে হঠাৎ (সম্ভবত মহীসঞ্চরণের কারণে) সমুদ্রের পরিবেশ সামুদ্রিক প্রাণীদের জন্য বিরূপ হয়ে ওঠে, বিশেষ করে সামুদ্রিক উদ্ভিদের ক্ষেত্রে। একটি সংক্ষিপ্ত পরিসরের মাঝেই তাই সামুদ্রিক উদ্ভিদের একটা বড় অংশ স্থলভাগে অভিযোজিত হয়ে ওঠে। তখন সমুদ্রে অক্সিজেন উৎপাদনকারীর পরিমাণ কমে গেলে অক্সিজেনের অভাবে মারা যায় অধিকাংশ সামুদ্রিক প্রাণী। এদিকে সংক্ষিপ্ত সময়ের মাঝে স্থলভাগে উদ্ভিদের সংখ্যা প্রাণীর সংখ্যার চেয়ে অতি দ্রুত বেড়ে গেলে হঠাৎ করেই পৃথিবীর আবহাওয়ায় দ্রুত হ্রাস পায় কার্বনডাইঅক্সাইডের পরিমাণ। আর গ্রীনহাউজ গ্যাসের হ্রাস পাওয়া যতটা না দ্রুত ঘটে, তার চেয়ে দ্রুত কমে যায় পৃথিবীর তাপমাত্রা, আবহাওয়া হয়ে ওঠে চরমভাবাপন্ন, মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে অধিকাংশ স্থলজ প্রাণী। ডেভোনিয়ান পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপের গণবিলুপ্তির কারণ আজও রহস্যময়। খুব সম্ভবত কোনো বড় ধরনের আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত কিংবা উল্কাপাতের জন্যই এই ধ্বংসযজ্ঞ ঘটেছিল

. পারমিয়ান গণবিলুপ্তি

 আগ্নেয়গিরি এবং উল্কাপাত, উভয় কারণেই পারমিয়ান মহাবিপর্যয় ঘটে

পালেয়জয়িক যুগটাই সম্ভবত পৃথিবীর ইতিহাসে প্রাণীজগতের জন্য সবচেয়ে অপয়া যুগ। আনুমানিক ২৫০ মিলিয়ন বছর আগে, যুগের শেষ অধ্যায়ে পারমিয়ান পর্যায়ে এসে ঘটে আরো একটি গণবিলুপ্তি। আর পারমিয়ান গণবিলুপ্তি নামে পরিচিত এই বিপর্যয়টিই পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মহাবিলুপ্তি। পারমিয়ান গণবিলুপ্তিতে পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন হয় সে সময়ে অস্তিত্ববান ৯৬ শতাংশ প্রাণীই! কি জলজ কি স্থলজ, সকল প্রাণীই যেন পাল্লা দিয়ে পৃথিবী থেকে পাততাড়ি গুটিয়ে অনন্তের পথে পা বাড়িয়েছিল এই মহাবিলুপ্তির পর্যায়ে। এর কারণটিও বিজ্ঞানীরা সুনির্দিষ্ট করতে পারেননি। খুব সম্ভবত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত এবং বড় উল্কাপতনই এতো বৃহৎ সংখ্যক প্রাণীর মৃত্যুর কারণ ছিল। তবে অধিকাংশ গবেষকের মতে, এই মহাবিপর্যয়টি ঘটেছিল অগ্ন্যুৎপাত আর উল্কাপতনউভয়ের কারণেই। বাতাসে মিথেনের পরিমাণ বেড়ে গিয়েছিল প্রচুর পরিমাণে, পৃথিবীর আবহাওয়া হয়ে উঠেছিল বসবাসের অযোগ্য, তাপমাত্রা বেড়ে গিয়েছিল যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি। আর এসবের কারণে অল্প কিছু প্রাণী বাদে সকলের অন্তর্ধানের মাধ্যমে বিদায় নেয় পালেওজয়িক যুগ, আগমন ঘটে মেসোজয়িক যুগের

. ট্রায়াসিকজুরাসিক গণবিলুপ্তি

 ট্রায়াসিক গণবিলুপ্তির সময় পৃথিবী জুড়ে ব্যাপক পরিমাণে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে

আনুমানিক ২০০ মিলিয়ন বছর পূর্বে মেসোজয়িক যুগের ট্রায়াসিক পর্যায় অন্তিম মুহূর্তে পৌঁছালে ট্রায়াসিক গণবিলুপ্তির শুরু হয়। গণবিলুপ্তি ইতিহাসের অন্যান্য গণবিলুপ্তির তুলনায় দীর্ঘস্থায়ী এবং কম ক্ষয়ক্ষতি সাধন করেছিল। মূলত, ট্রায়াসিক গণবিলুপ্তি বলতে একাধিক ছোট ছোট গণবিলুপ্তিকে একত্রে বোঝানো হয়। ট্রায়াসিক পর্যায়ের শেষ ১৮ মিলিয়ন বছর জুড়েই এসব ছোট ছোট গণবিলুপ্তির ঘটনা ঘটে এবং সময় পৃথিবী থেকে হারিয়ে যায় প্রাণীজগতের অস্তিত্ববান ৫০ ভাগ প্রজাতি। আর এই গণবিলুপ্তির একক কারণ হলো প্রচণ্ড রকমের আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত। ট্রায়াসিক পর্যায়ের শেষভাগে এসে পৃথিবীতে এত বেশি পরিমাণ অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে যে স্থলভাগের একটা বড় অংশ ব্যাসল্ট বা আগ্নেয়শিলার বন্যায় প্লাবিত হয়। তাতেই ধ্বংস হয়ে যায় অনেক স্থলজ প্রাণী। উপরন্তু, ব্যাপক পরিমাণ অগ্ন্যুৎপাতের কারণে বাতাসে বেড়ে যায় মিথেনের পরিমাণ, বড় আকারের পরিবর্তন ঘটে জলবায়ুতে, পানিতে পিএইচ লেভেল স্বাভাবিকের চেয়ে কোথাও বেড়ে যায় তো কোথাও কমে যায়, সবমিলিয়ে অবস্থা এতটা প্রতিকূল হয় যে বিরাট সংখ্যক প্রাণীর অস্তিত্ব লোপ পায়

. ক্রিটেসিয়াসটারশিয়ারি গণবিলুপ্তি

 এই গণবিলুপ্তির কালেই পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন হয় ডাইনোসর প্রজাতি;

পৃথিবীর ইতিহাসে শেষ গণবিলুপ্তির ঘটনাটি ঘটেছিল ৬৫ মিলিয়ন বছর পূর্বে। অন্যান্য গণবিলুপ্তির চেয়ে এই গণবিলুপ্তিটিই সবচেয়ে দীর্ঘ সময়ের বিরতিতে ঘটে। সবচেয়ে পরিচিত এবং বিজ্ঞানীদের নিকট সর্বাধিক প্রমাণ সম্বলিত মহাবিলুপ্তির ঘটনাও এটিই। এই মহাবিলুপ্তিই দুটি দীর্ঘ যুগের মধ্যে বিভক্তি রেখা টেনে দেয়। মেসোজয়িক যুগের শেষ অধ্যায় তথা ক্রিটেসিয়াস পর্যায় এবং সেনোজয়িক যুগের প্রথম অধ্যায় তথা টারশিয়ারি পর্যায়ের মাঝে এই গণবিলুপ্তির ঘটনাটি ঘটে বলে একে ক্রিটেসিয়াসটারশিয়ারি গণবিলুপ্তি বলা হয়। এই গণবিলুপ্তিতে পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নেয় তখনকার প্রাণীজগতের ৭৫ ভাগ প্রজাতি, যার মধ্যে অতি পরিচিত নামডাইনোসর আছে। এই গণবিলুপ্তির কারণও অন্যগুলোর চেয়ে স্পষ্ট এবং সুনির্দিষ্ট। এক প্রচণ্ড উল্কাপাত কিংবা গ্রহাণুর পতনেই সূচনা হয় মহাবিলুপ্তির। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের ঘর্ষণে জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ডে পরিণত হওয়া বিশাল বিশাল উল্কা কিংবা গ্রহাণুগুলো একদিকে যেমন জলজ প্রাণীদের হত্যা করেছে, অন্যদিকে স্থলভাগের প্রাণীও হত্যা করেছে। বিস্ফোরণ থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকা প্রাণীরাও রক্ষা পায়নি। কেননা, প্রচণ্ড সব বিস্ফোরণে প্রাণীকূলের আয়ত্তে থাকা বায়ুমণ্ডল ট্রফোস্ফিয়ার ধূলিকণা আর বিষাক্ত গ্যাসে ভরে যায়। ফলে মৃত্যু হয় অধিকাংশ প্রাণীর

গ্রেট অক্সিজেনেশনের সংকট (. বিলিয়ন বছর আগে)

জীবনের ইতিহাসের একটি প্রধান টার্নিং পয়েন্ট ঘটেছিল আড়াই বিলিয়ন বছর আগে যখন ব্যাকটিরিয়া সালোকসংশ্লেষণের সক্ষমতাটি বিকশিত হয়েছিলঅর্থাৎ কার্বন ডাই অক্সাইডকে বিভক্ত করতে এবং শক্তি ছাড়তে সূর্যের আলো ব্যবহার করা।দুর্ভাগ্যক্রমে, সালোকসংশ্লেষণের প্রধান উপজাত অক্সিজেন, যা আজ থেকে . বিলিয়ন বছর পূর্বে পৃথিবীতে প্রদর্শিত অ্যানারোবিক (অক্সিজেনশ্বাসপ্রশ্বাস) জীবের পক্ষে বিষাক্ত ছিল। সালোকসংশ্লেষণের বিবর্তনের দুশো মিলিয়ন বছর পরে, পৃথিবীর বেশিরভাগ অ্যানেরোবিক জীবন (গভীর সমুদ্রবাসকারী ব্যাকটেরিয়া বাদে) বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার জন্য বায়ুমণ্ডলে পর্যাপ্ত অক্সিজেন তৈরি হয়েছিল

স্নোবল আর্থ (700 মিলিয়ন বছর আগে

একটি প্রমাণিত সত্যের চেয়ে বেশি সমর্থিত হাইপোথিসিসের চেয়ে অনেক বেশি, স্নোবল আর্থ বলেছে যে আমাদের গ্রহের পুরো পৃষ্ঠটি 700০০ থেকে 50৫০ মিলিয়ন বছর আগে যে কোনও জায়গায় দৃo়ভাবে জমাট বেঁধেছিল এবং সর্বাধিক আলোকসংশ্লিষ্ট জীবনকে বিলুপ্ত করেছে। স্নোবল আর্থের জন্য ভূতাত্ত্বিক প্রমাণগুলি শক্তিশালী হলেও এর কারণ তীব্রভাবে বিতর্কিত। সম্ভাব্য প্রার্থীরা আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত থেকে শুরু করে সৌর শিখা থেকে পৃথিবীর কক্ষপথে এক রহস্যময় ওঠানামা অবধি। এটি সত্যই ঘটেছে বলে ধরে নেওয়া, স্নোবল আর্থ তখন হতে পারে যখন আমাদের গ্রহের জীবন সম্পূর্ণরূপে, অপরিশোধনযোগ্য বিলুপ্তির নিকটে এসেছিল

শেষএডিয়াচরণ বিলুপ্তি (542 মিলিয়ন বছর আগে)

এডিয়াচরণ সময়কালের সাথে খুব বেশি লোক পরিচিত নয়, এবং সঙ্গত কারণে: এই ভূতাত্ত্বিক সময়ের বিস্তৃতকরণ (6৩৩ মিলিয়ন বছর আগে থেকে ক্যাম্ব্রিয়ান যুগের গোষ্ঠী পর্যন্ত) বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায় কর্তৃক 2004 সালে আনুষ্ঠানিকভাবে নামকরণ করা হয়েছিল। এডিয়াচরণ সময়কালে, আমাদের কাছে সহজ, নরমদেহযুক্ত বহুকক্ষীয় জীবের জীবাশ্ম প্রমাণ রয়েছে যা পেরেজোজিক যুগের শক্ত শেলযুক্ত প্রাণীগুলির পূর্বাভাস দেয়। যাইহোক, এডিচরণ শেষে ডাল পাত্রে, এই জীবাশ্ম অদৃশ্য হয়ে যায়। নতুন জীবগুলি আবারও কল্পিতভাবে উপস্থিত হওয়ার আগে কয়েক মিলিয়ন বছর ব্যবধান রয়েছে

ক্যামব্রিয়ানঅর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তির ঘটনা (৪৮৮ মিলিয়ন বছর আগে)

আপনি ক্যামব্রিয়ান বিস্ফোরণের সাথে পরিচিত হতে পারেন। প্রায় 500 মিলিয়ন বছর পূর্বে অসংখ্য উদ্ভট জীবের জীবাশ্ম রেকর্ডে এটি উপস্থিতি রয়েছে, তাদের বেশিরভাগ আর্থ্রোপড পরিবারের অন্তর্ভুক্ত। তবে আপনি সম্ভবত ক্যামব্রিয়ানঅর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তির ঘটনার সাথে কমই পরিচিত না, যা ট্রিলোবাইট এবং ব্র্যাচিওপড সহ বিশাল সংখ্যক সামুদ্রিক জীবের অদৃশ্য হয়ে গেছে। জীবনের সম্ভবত শুকনো জমিতে পৌঁছতে না পেরে বিশ্বের সমুদ্রের অক্সিজেন সামগ্রীতে হঠাৎ, অব্যক্ত কমানোর সবচেয়ে সম্ভবত ব্যাখ্যা explanation

অর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তি (৪৪-4-৪৪ মিলিয়ন বছর আগে)

অর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তিতে দুটি পৃথক বিলুপ্তির সমন্বয়ে গঠিত: একটি 77 মিলিয়ন বছর আগে এবং অন্যটি ৪৩৩ মিলিয়ন বছর আগে। এই দুটিডালশেষ হওয়ার পরে, বিশ্বের সামুদ্রিক বৈদ্যুতিন (ব্রাচিওপোডস, বিভেলভ এবং প্রবালগুলি সহ) জনসংখ্যার পরিমাণ হ্রাস পেয়েছিল 60 শতাংশ। অর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তির কারণ এখনও একটি রহস্য। প্রার্থীরা কাছাকাছি সুপারনোভা বিস্ফোরণ (যা পৃথিবীকে মারাত্মক গামা রশ্মির সংস্পর্শে আনত) থেকে শুরু করে সমুদ্রতল থেকে বিষাক্ত ধাতব নির্গমন হতে পারে

দেরীতে ডেভোনিয়ান বিলুপ্তি ( 37 মিলিয়ন বছর আগে)

অর্ডোভিশিয়ান বিলুপ্তির মতো, মরহুম ডিভোনিয়ান বিলুপ্তিতে অনেকগুলিডালরয়েছে, যা প্রায় 25 মিলিয়ন বছর ধরে প্রসারিত হতে পারে। পলিটি স্থির হয়ে যাওয়ার পরে, পৃথিবীর সমস্ত সামুদ্রিক জেনারার প্রায় অর্ধেক বিলুপ্ত হয়ে যায়, যার মধ্যে অনেক প্রাচীন মাছ ছিল যার জন্য ডেভোনিয়ান সময় বিখ্যাত ছিল। ডিভোনিয়ান বিলুপ্তির কারণ কী তা কেউ নিশ্চিতভাবে নিশ্চিত নয়। সম্ভাবনাগুলির মধ্যে রয়েছে একটি উল্কাপূর্ণ প্রভাব বা মারাত্মক পরিবেশগত পরিবর্তন যা বিশ্বের প্রথম স্থলবাসকারী গাছপালা দ্বারা নেওয়া হয়েছিল

পার্মিয়ানট্রায়াসিক বিলুপ্তির ইভেন্ট (250 মিলিয়ন বছর আগে)

সমস্ত গণবিলুপ্তির জননী, পার্মিয়ানট্রায়াসিক বিলুপ্তির ঘটনাটি একটি সত্য বৈশ্বিক বিপর্যয় ছিল, সমুদ্রবাসকারী প্রাণীগুলির একটি অবিশ্বাস্য 95% প্রাণী এবং percent শতাংশ স্থলজন্তুকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল। তীব্র বিপর্যয়টি হয়েছিল যে ট্রায়াসিক জীবাশ্মের রেকর্ডের প্রথম দিকে বিচার করতে, জীবনটি পুনরুদ্ধার করতে 10 মিলিয়ন বছর সময় নিয়েছিল। যদিও এটি মনে হতে পারে যে এই স্কেলটির কোনও ঘটনা কেবলমাত্র একটি উল্কাপূর্ণ প্রভাবের কারণে ঘটতে পারে, সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে চরম আগ্নেয়গিরির ক্রিয়াকলাপ এবং / অথবা সমুদ্রের তল থেকে হঠাৎ করে বিষাক্ত পরিমাণে মিথেনের প্রকাশের অন্তর্ভুক্ত থাকে

ট্রায়াসিকজুরাসিক বিলুপ্তির ঘটনা (২০০ মিলিয়ন বছর আগে)

কে / টি বিলুপ্তির ঘটনা ডাইনোসরদের যুগের অবসান ঘটিয়েছিল, তবে এটি ছিল ট্রায়াসিকজুরাসিক বিলুপ্তির ঘটনা যা তাদের দীর্ঘ রাজত্বকে সম্ভব করেছিল। এই বিলুপ্তির শেষে (যার সঠিক কারণটি নিয়ে এখনও বিতর্ক রয়েছে), বেশিরভাগ বৃহত, স্থলবাসকারী উভচর পৃথিবী থেকে মুছে ফেলা হয়েছিল, বেশিরভাগ আর্কোসর এবং থেরাপিডিসহ। ডাইনোসরদের পরবর্তী জুরাসিক এবং ক্রিটাসিয়াস সময়কালে এই শূন্য বাস্তুসংস্থানিক কুলুঙ্গিগুলি (এবং সত্যিকারের বিশাল আকারের বিকাশে) বসবাসের জন্য উপায়টি পরিষ্কার করা হয়েছিল

কে / টি বিলুপ্তির ইভেন্ট (65 মিলিয়ন বছর আগে)

সম্ভবত পরিচিত গল্পটি শোনার দরকার নেই: million মিলিয়ন বছর পূর্বে, দুই মাইল প্রশস্ত উল্কাটি ইউকাটান উপদ্বীপে ধাক্কা মেরে বিশ্বব্যাপী ধূলিকণা মেঘ উত্থাপন করেছিল এবং একটি বাস্তুসংস্থানীয় বিপর্যয় বন্ধ করেছিল যে ডাইনোসর, টেরোসরাস এবং সামুদ্রিক সরীসৃপকে বিলুপ্ত করেছিল। এটি যে ধ্বংসাত্মক ঘটনা ঘটেছে তা বাদ দিয়েও কে / টি বিলুপ্তির ঘটনার একটি স্থায়ী উত্তরাধিকার এটি বহু বিজ্ঞানীকে ধরে নিয়েছিল যে গণ বিলুপ্তি কেবলমাত্র উল্কা প্রভাব দ্বারা ঘটতে পারে। আপনি যদি পর্যন্ত পড়ে থাকেন তবে আপনি জানেন যে সহজভাবে এটি সত্য নয়

কোয়ার্টারারি বিলুপ্তির ইভেন্ট (50,000-10,000 বছর আগে)

মানুষের দ্বারা প্রাপ্ত একমাত্র গণ বিলুপ্তির কারণ (কমপক্ষে আংশিকভাবে), কোয়ার্টেনারি বিলুপ্তির ঘটনাটি পশম ম্যামথ, সাবারদাঁতযুক্ত বাঘ এবং আরও বিশাল দৈত্যযুক্ত ওম্বাটের মতো আরও হাস্যকর জেনার সহ বিশ্বের বেশিরভাগ প্লাস আকারের স্তন্যপায়ী প্রাণীকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে a এবং জায়ান্ট বিভার যদিও এই সিদ্ধান্তে প্রলোভন পাওয়া যায় যে এই প্রাণীগুলি প্রথম দিকে বিলুপ্তির শিকার হয়েছিলহোমো স্যাপিয়েন্স, তারা সম্ভবত ধীরে ধীরে জলবায়ু পরিবর্তন এবং তাদের অভ্যস্ত আবাসগুলির অনভিজ্ঞ বিন্যাসের কাছেও প্রাণ হারায় (সম্ভবত কৃষকদের কৃষির জন্য পরিষ্কারকাটা বন))

———————————————————————-

Rxeb¥vkv

  জীবন্ত জিনিসগুলি বহিরাগত চাপ বা হুমকির একটি ধ্রুবক বাধার সম্মুখীন হয় যা তাদের বেঁচে থাকার এবং পুনরুত্পাদন করার ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করে। কোনও প্রজাতি যদি অভিযোজনের মাধ্যমে এই হুমকির সাথে সফলভাবে মোকাবেলা করতে অক্ষম হয়, তবে তারা বিলুপ্তির মুখোমুখি হতে পারে

একটি ক্রমাগত পরিবর্তিত শারীরিক পরিবেশের জন্য নতুন তাপমাত্রা, জলবায়ু এবং বায়ুমণ্ডলীয় অবস্থার সাথে খাপ খাইয়ে নিতে জীবের প্রয়োজন হয়। জীবন্ত জিনিসগুলি অবশ্যই আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ, ভূমিকম্প, উল্কা ধর্মঘট, আগুন এবং হারিকেনের মতো অপ্রত্যাশিত ঘটনার সাথে মোকাবিলা করতে হবে

নতুন লাইফফর্মগুলি উত্থিত হয় এবং যোগাযোগ করে, প্রজাতিগুলিকে প্রতিযোগিতা, পূর্বাভাস, পরজীবীতা, রোগ এবং অন্যান্য জটিল জৈব প্রক্রিয়াগুলি মোকাবেলা করার জন্য একে অপরের সাথে খাপ খাওয়ানোর জন্য আরও চ্যালেঞ্জ করা হয়

সাম্প্রতিক বিবর্তনীয় ইতিহাসে, অনেক প্রাণী এবং অন্যান্য জীবের মুখোমুখি হুমকির মূলত একক প্রজাতির প্রভাব: মানুষ driven মানুষ এই গ্রহটিকে যে পরিমাণে পরিবর্তন করেছে তা অগণিত প্রজাতিগুলিকে প্রভাবিত করেছে এবং এত বিশাল আকারে বিলুপ্তি শুরু করেছে যে অনেক বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন যে আমরা এখন একটি গণ বিলুপ্তির (পৃথিবীর জীবনের ইতিহাসে ষষ্ঠ গণ বিলুপ্তি) অভিজ্ঞতা অর্জন করছি

প্রতিরোধযোগ্য হুমকি

যেহেতু মানুষ প্রকৃতই প্রকৃতির অঙ্গ, তাই মনুষ্যনির্মিত হুমকিগুলি কেবল প্রাকৃতিক হুমকির একটি উপসেট। তবে অন্যান্য প্রাকৃতিক হুমকির বিপরীতে, মনুষ্যনির্মিত হুমকি হুমকি যা আমরা আমাদের আচরণ পরিবর্তন করে প্রতিরোধ করতে পারি

মানুষ হিসাবে, আমাদের বর্তমান এবং অতীত উভয়ই আমাদের ক্রিয়াকলাপগুলির পরিণতিগুলি বোঝার একটি অনন্য ক্ষমতা রয়েছে। আমাদের ক্রিয়াগুলি আমাদের চারপাশের বিশ্বে কী প্রভাব ফেলেছে এবং কীভাবে এই ক্রিয়াকলাপগুলির পরিবর্তনগুলি ভবিষ্যতের ঘটনাগুলিকে পরিবর্তন করতে সহায়তা করতে পারে সে সম্পর্কে আরও জানতে সক্ষম are মানব ক্রিয়াকলাপগুলি পৃথিবীতে জীবনকে কীভাবে বিরূপ প্রভাবিত করেছে তা পরীক্ষা করে আমরা অতীতের ক্ষতিগুলিকে বিপরীত করতে এবং ভবিষ্যতের ক্ষতি রোধে পদক্ষেপ নিতে পারি

মানবসৃষ্ট হুমকির ধরণ

মানবতৈরি হুমকিগুলি নিম্নলিখিত সাধারণ বিভাগে শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে:

           আবাসস্থল ধ্বংস এবং খণ্ডনমানুষকে জমিটি কৃষিক্ষেত্র, নগর নগর উন্নয়নের জন্য, বাঁধ নির্মাণ বা অন্যান্য প্রয়োজনে ব্যবহার করতে সক্ষম করার জন্য একটানা একটানা আবাসস্থলের ধ্বংস বা বিচ্ছিন্নকরণ

           জলবায়ু পরিবর্তনজীবাশ্ম জ্বালানী পোড়ানোর মতো মানবিক ক্রিয়াকলাপ পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলকে পরিবর্তিত করেছে এবং এর ফলে বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তন হয়েছে

           বিদেশী প্রজাতির ভূমিকাপ্রজাতির দ্বারা দখলকৃত অঞ্চলগুলিতে নেটিভ প্রজাতির দুর্ঘটনাজনিত ইচ্ছাকৃতভাবে প্রবর্তনের ফলে অসংখ্য স্থানীয় প্রজাতির বিলুপ্তির ফলস্বরূপ ঘটেনি

           দূষণপরিবেশে মুক্তিপ্রাপ্ত দূষণকারী (কীটনাশক, ভেষজনাশক, ইত্যাদি) বিভিন্ন প্রাণীর দ্বারা আক্রান্ত হয়

           সম্পদের অতিরিক্ত শোষণখাবারের জন্য বন্য জনগোষ্ঠীর শোষণের ফলে জনসংখ্যা ক্র্যাশ হয়েছে (উদাহরণস্বরূপ ওভারফিশিং)

           শিকার, শিকার করা, বিপন্ন প্রজাতির অবৈধ বাণিজ্যকিছু বিপন্ন প্রজাতি অবৈধ বাজারগুলির জন্য তাদের মূল্যকে লক্ষ্যবস্তু করে

           দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুগাড়ির হিট, জানালার সংঘর্ষ (পাখি), জাহাজের সাথে সংঘর্ষ (তিমি)

————————————————————-

ইতিহাসের ভয়ংকর পাঁচ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

পৃথিবীর ইতিহাসে ভয়ংকর কিছু প্রাকৃতিক দুর্যোগ বিভিন্ন সময়ে আঘাত এনেছিল যার ভয়াবহতার কথা চিন্তা এখনও মানুষ শিউরে ওঠে। ইতিহাসের ভয়ংকর সেই পাঁচ প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা থাকছে এখানে

# ইন্ডিয়া সাইক্লোন

১৮৩৯ সালের ২৫ নভেম্বর ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে ইন্ডিয়া সাইক্লোন আঘাত আনে। এই সাইক্লোন উপকূলীয় এলাকায় ৪০ ফুট ঢেউ সৃষ্টি করেছিল যার ফলে বহু গ্রাম ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছিল। প্রায় ২০ হাজার মানুষ শুধু পানিতে ডুবেই মারা গিয়েছিল। আর সাইক্লোনে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছিল লাখের কোঠা

# ভোলা সাইক্লোন

ভোলা সাইক্লোন পৃথিবীর ইতিহাসেই সবচেয়ে ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড় হিসাবে পরিচিত। ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর এই ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশ (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) এবং পশ্চিম ভারতে আঘাত আনে। এই ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি করেছিল ভয়ংকর বন্যার। যার ফলাফল মানুষকে বহুদিন বহন করতে হয়েছিল। এই ভয়াবহ দুর্যোগে সে সময় প্রায় লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল

# সানজির ভুমিকম্প

১৫৫৬ সালের ২৩ জানুয়ারি উত্তর চীনের শানজি সানজি প্রদেশে আঘাত আনে আট মাত্রার ভুমিকম্প। মুহূর্তেই যেন প্রদেশ দুটি মাটির সাথে মিশে যায়। ভয়ংকর এই ভুমিকম্পে প্রায় লাখ ৩০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল। ধারণা করা হয় সর্বনাশা এই ভুমিকম্পের পরে দুই প্রদেশের প্রায় ৬০ ভাগ জনসংখ্যা কমে গিয়েছিল

# ইয়েলো রিভার ফ্লাড

মানব জাতির ইতিহাসে ভয়ংকর বন্যা হিসাবে পরিচিত ইয়েলো রিভার ফ্লাড বা হলুদ নদীর বন্যা। এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় ভয়ংকর প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসাবে পরিচিত। ১৮৮৭ সালের সেপ্টেম্বরে ইয়েলো রিভার ফ্লাডের ফলে চীনের ১১টি বড় শহর এবং শত শত গ্রাম ধ্বংস হয়ে যায়। লাখ লাখ মানুষ এই বন্যায় ঘরছাড়া হয়। ৫০ হাজার বর্গমাইল এলাকায় বন্যার পানি প্রবেশ করে এবং আনুমানিক লাখ থেকে ২০ লাখ মানুষ মারা যায়

# সেন্ট্রাল চায়না ফ্লাড

সেন্ট্রাল চায়না ফ্লাড ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়ংকর দুর্যোগ হিসাবে পরিচিত হয়ে আছে। এটি ১৯৩১ সালের জুলাই থেকে আগস্ট মাসে চীনে সংঘটিত হয়। সে সময়ে ব্যাপক বন্যার ফলে পানিতে ডুবে, রোগে ভুগে এবং অনাহারে . মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু হয়। ন্যাশনাল ওশানিক এন্ড অ্যাটমসপেরিক এডমিনিস্ট্রেশনের তথ্য অনুসারে এই বন্যায় ৫১ মিলিয়নের বেশি বা চীনের এক চতুর্থাংশ জনসংখ্যা ক্ষতিগ্রস্থ হয়

————————————————————-

বিলুপ্তি ও দুর্যোগ পৃথক বিষয় হলেও উভয়ের প্রত্যক্ষ প্রভাব মানুষ ও প্রকৃতিতে বিদ্যমান। বিলুপ্তি যেমন প্রাকৃতিক ভাবে সময়ের পরিক্রমায় ঘটে তেমনি দুর্যোগ সংঘঠিত বা হওয়ার ক্ষেত্রেও মানুষ ও প্রকৃতিতে বিরাট প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

পৃথিবীর ইতিহাসের ভয়ানক কিছু দুর্ভিক্ষের ইতিবৃত্ত

পৃথিবীর ইতিহাসে যেসব কারনে মানুষ সবচেয়ে বেশি মারা গেছে তাদের মধ্যে বড় একটি কারন দুর্ভিক্ষ। দুর্ভিক্ষ প্রাকৃতিক দুর্যোগ গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভয়ানক নির্মম। একটি দুর্ভিক্ষে গ্রামের পর গ্রাম, শহরের পর শহর জনশূন্য হয়ে যায়। পড়ে থাকে নিথর কংকালসার দেহ। আর সেই দেহগুলো পরিণত হয় কাক আর শকুনদের খাদ্যে। চলুন জেনে আসা যাক পৃথিবীর ইতিহাসে ভয়াবহ কিছু দুর্ভিক্ষের কাহিনী

. চীনের মহাদুর্ভিক্ষ (১৯৫৯১৯৬১)

১৯৫৯ থেকে ১৯৬১ সাল পর্যন্ত চীনে সংঘটিত দুর্ভিক্ষটি ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি নির্মম ভয়ানক দুর্ভিক্ষ। গবেষকদের হিসাবমতে দুর্ভিক্ষে প্রায় কোটি এবং প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ ফ্রানক ডিকোটারের মতে প্রায় কোটি ৫০ লক্ষ লোকের মৃত্যু হয়। সরকারি হিসাব মতে চীনের সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ সিচুয়ান প্রদেশে প্রতি সাতশো জনের মধ্যে এগারো জন মানুষ দুর্ভিক্ষে মারা যায়

চীনের মহাদুর্ভিক্ষ সম্পর্কে জিন জিয়াং এর একটি সরকারি দলের সচিব ইয়ু দিহং বলেন,

আমি এক গ্রামে গিয়ে ১০০ লাশ দেখি, তারপর অন্য গ্রামে অন্য ১০০ লাশ দেখেছি। কেউ তাদের দিকে মনোযোগ দেয়নি। লোকেরা বলে যে কুকুর লাশ খাচ্ছিল। কিন্তু তা সত্য না। কারন তার আগেই মানুষ কুকুর খেয়ে ফেলেছিল।

দুর্ভিক্ষের জন্য দায়ী করা হয় প্রতিকূল আবহাওয়া, সামাজিক চাপ, অর্থনৈতিক অবস্থা এবং সরকারি বিধান দ্বারা আরোপিত কৃষিতে আমূল পরিবর্তন। চীনা কমিউনিস্ট পার্টির চেয়ারম্যান মাও সে তুং ক্ষমতায় আসার পর কৃষিতে ব্যক্তিমালিকানা বন্ধ করে বিরাট পরিবর্তন আনেন। উক্ত নীতি মেনে চলতে ব্যর্থ হলে চীনা জনগণের উপর নেমে আসতো নানা নিপীড়ন। সরকার আরোপিত নীতি ব্যবসার পরিপ্রেক্ষিতে সামাজিক চাপ রাষ্ট্রে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করে। সময় সমবায় চাষ ব্যক্তিগত খামার নিষিদ্ধ করা হয়। লক্ষ লক্ষ কৃষককে জোরপূর্বক লৌহ ইস্পাত নির্মাণে বাধ্য করা হয়। ফলে দেখা দেয় খাদ্য সংকট এবং নেমে আসে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ

. ১৯০৭ সালে চীনে দুর্ভিক্ষ

১৯৫৯ সালের আগে চীনের জনগণের আরো একবার করাল দুর্ভিক্ষের অভিজ্ঞতা হয় ১৯০৭ সালে। বলা হয়ে থাকে পৃথিবীর ইতিহাসে এটি ২য় ভয়ংকর দুর্ভিক্ষ। সময় প্রায় ২৫ মিলিয়ন মানুষ মারা যায়। গড়ে প্রতিদিন প্রায় ৫০০০ মানুষ খাদ্য অভাবে অনাহারে মারা যায়

দুর্ভিক্ষের কারন হিসাবে দায়ী করা হয় সে সময়ে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ বন্যাকে। পূর্বমধ্য চীন সে সময়ে এক মারাত্মক ঝড় বন্যার সম্মুখীন হয়। সময় ফসলের প্রায় শতভাগ বন্যার কারনে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে নেমে আসে ভয়াবহ খাদ্য সংকট এবং দেখা যায় ইতিহাসের দ্বিতীয় করুণ দুর্ভিক্ষ

. ভারতীয় উপমহাদেশে ছিয়াত্তরের মন্বন্তর (১৭৭০)

বাংলা ১১৭৬ সালে দুর্ভিক্ষ ঘটেছিলো বলে এর নাম ছিয়াত্তরের মন্বন্তর বলা হয়। অত্যধিক বৃষ্টিপাত বন্যার করাল গ্রাসে প্রায় সব ফসল নষ্ট হয়। সে সময় মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্বের ফলে অবস্থার চরম অবনতি ঘটে। ১৭৬৮ সালে আদায়কৃত রাজস্ব ১৫.২১ মিলিয়ন রুপির চেয়ে ১৭৭১ সালে আদায়কৃত রাজস্বের পরিমাণ ,২২,০০০ রুপি বেশি ছিল, অথচ এর আগের বছর দুর্ভিক্ষ ঘটে যায়। এভাবে মুনাফা লুট অতিরিক্ত রাজস্ব আদায়ের উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার কারণে জনমানুষের ভোগান্তি চরমে পৌঁছে।  পরিণতিতে মারাত্মক দুর্ভিক্ষ পীড়িত এলাকাগুলো হয়ে পরে জনশূন্য

এছাড়াও ১৭৮৩ থেকে ১৭৮৬ সালে ভারতীয় উপমহাদেশে অনেক গুলো দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। বাংলায় সেই সময় তুলনামূলক কম দুর্দশা থাকলেও বোম্বে, মাদ্রাজ, মহীপূর, পাঞ্জাব এবং উত্তর পূর্বাঞ্চলের কিছু অঞ্চল মারাত্মক দুর্ভিক্ষের কবলে পরে। সময় খাদ্যের অভাবে প্রায় কোটি মানুষ মারা যায়

. বাংলায় পঞ্চাশের মন্বন্তর (১৯৪৩)

১৯৪৩ সালে বাংলায় দুর্ভিক্ষটি পঞ্চাশের মন্বন্তর (বাংলা ১৩৫০) নামে পরিচিত। মন্বন্তরে বাংলাজুড়ে প্রায় ৩০ লাখ মানুষ না খেয়ে মারা যায়

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জাপান প্রতিবেশী দেশ মায়ানমার (তৎকালীন নাম বার্মা) দখল করে নেয়ার পর তেতাল্লিশের মন্বন্তর শুরু হয়। ওই সময় বার্মা ছিল চাল আমদানির বড় উৎস। ভারতে নিয়োজিত ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসক সেনা যুদ্ধে নিয়োজিত কর্মীদের বিপুল পরিমাণ খাদ্য মজুত করা হয়। ফলে অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায় চালের দাম। সে সময় জাপানের ভারত দখলের একটা সম্ভাবনা ছিল। তাই দখলের পর খাদ্য যাতে শত্রুর হাতে না যায় তাই ব্রিটিশ সরকার আগাম কিছু ব্যবস্থা নেয়।  বাংলাজুড়ে নৌকা গরুর গাড়ী বাজেয়াপ্ত নয় তো ধ্বংস করে ফেলা হয়। এতে বিতরণ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। সারা বাংলায় খাদ্যের হাহাকার পড়ে যায়। পথে প্রান্তরে না খেয়ে লুটিয়ে পড়তে থাকে মানুষ। বুভুক্ষু হাজার হাজার মানুষ একমুঠো অন্নের জন্য  ধাই করছিল কলকাতার দিকে। দেখা গেছে, এসব অভাগা দলে দলে পথের ওপর পড়ে ধুঁকছেন আর আবর্জনার পাশে উচ্ছিষ্টে ভাগ বসাতে পরস্পর লড়ছেন। একই সময় ব্রিটিশ কর্মকর্তা এবং তাদের তোষামুদে অবস্থাপন্ন ভারতীয় লোকজন বাড়িতে বসে ভূড়িভোজ করছেন

. রাশিয়ার দুর্ভিক্ষ (১৯২১১৯২২)

১৯২১ সালের রাশিয়ার দুর্ভিক্ষের কারন ছিল হঠাৎ রাজনৈতিক পরিবর্তন প্রতিকূল আবহাওয়া। সময় ৫০ লক্ষ মানুষ মারা যায়

সে সময় খাবারের জন্য মানুষ অত্যন্ত ঘৃণ্য কাজ করতেও বাধ্য হয়েছিল। পোকামাকড়, কাদামাটি, গাছের পাতা, মৃত প্রাণী, এমনি মানুষের মাংস পর্যন্ত খেয়েছে অনেকে। বেঁচে থাকার তাগিদে অনেকে নিজ সন্তানকে হত্যা করে পর্যন্ত মাংস খেয়েছে। অনেকে আবার কবর খুঁড়ে মৃত মানুষের মাংস খেয়েছে। মানুষ হত্যার পুলিশি রিপোর্ট থানায় অগ্রাহ্য করা হত সে সময়, কারন তখন মানুষ হত্যাকে বেঁচে থাকার একটি উপায় হিসেবে ধরে নেয়া হত

. উত্তর কোরিয়ার দুর্ভিক্ষ (১৯৯৪১৯৯৮)

খুব সম্প্রতি ঘটে যাওয়া দুর্ভিক্ষ কবলিত দেশ গুলোর মধ্যে উত্তর কোরিয়া একটি। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া একটি ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের সম্মুখীন হয়। উত্তর কোরিয়ার মোট জনসংখ্যা . কোটির মধ্যে প্রায় ৩৫ লক্ষ মানুষ মারা যায়

অর্থনৈতিক ভুল ব্যবস্থাপনা এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে সহযোগীতা হারানো ছিল দুর্ভিক্ষের মূল কারন। ছাড়া ক্রমাগত বন্যা খরা অন্যতম কারন বলে মনে করা হয়

. ভিয়েতনামে দুর্ভিক্ষ (১৯৪৪১৯৪৫)

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেদখলে