কিভাবে আর্টিকেল লিখতে হয়?

কিভাবে আর্টিকেল লিখতে হয় তা না জানলে বাংলা, ইংরেজী বা, যেকোন ভাষার দক্ষতা থাকলেও তা কাজে লাগবে না(আর্টিকেল লেখার জন্য)। একাডেমিক আর্টিকেলের সাথে ব্লগ বা, ওয়েবসাইটের আর্টিকেলের সুনির্দিষ্ট কিছু পার্থক্য আছে। আপনাকে এই পার্থক্যটাও জানতে হবে। অন্যথায়, বিষয়ভিত্তিক জ্ঞান থাকলে ভালো আর্টিকেল লিখতে পারবেন বটে, কিন্তু তা পাঠকের কাছে না ও পৌছাতে পারে।প্রথমে বলে রাখি,

পদ্মফুল

ফুলের ছবি- পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের দশটি ফুলের ছবি দেখে নিন

দেখে নিন সুন্দর দশটি ফুলের ছবি যারা ছবিগুলো তুলেছেন তাদের নামসহ কিছু ফুলের ছবি আপনাদের দেখাতে যাচ্ছি। আপনারা চাইলে ডাউনলোডও করে নিতে পারবেন। এই তালিকায় বাংলাদেশী ফুলও স্থান পাবে। ছবিগুলো আমরা নিয়েছি Pixabay থেকে। তাই সবগুলোই কপিরাইট ফ্রি। কথা না বাড়িয়ে চলুন দেখে নেয়া যাক-   এই ছবিটি তুলেছেন- Virandek নামের একজন জার্মান ভদ্রলোক। উনি

অভিলাষী জীবন

উচ্চবিত্তের বিকৃত অভিলাষে সমাজের সাধারণ মানুষ নিষ্পেষিত হতে থাকে। নিন্মবিত্তেরা সেইসব সাধ্যাতীত অভিলাষ পূরণে ধ্বংসের পথে পরিচালিত করে তাদের সাধারণ জীবন। ২. বিলাসবহুল জীবনের উপস্থিতি যে জাতির মধ্যে ছিলো তারা পৃথিবী থেকে খুব দ্রুত নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত খরচ অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত। যে জাতি তার গোষ্ঠীর সকলের আহার বস্ত্র নিশ্চিত না করে কিভাবে বিলাসিতায় লিপ্ত

মাঠ গুলো আজ শূন্য

  =একসময় বিকালে মাঠ গুলো ছিল খেলার আমেশে ভরা।রম -রমা থাকত ক্রিকেট,ফুটবল,কাবাডি আরও অনেক খেলায়।স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছেলেদের জন্য প্রত্যেকটি বিকাল হয়ে থাকত স্বরনীয়। খেলায় থাকত ঝগরা, থাকত ভালবাসা,থাকত বন্ধুত্ব। কিন্তু এখন মাঠ গুলোতে আগের মতো ছেলেরা খেলায় মেতে উঠে না। মাঠ গুলো থাকে নিরব স্তব্ধ, মাঠের ঘাস গুলো বড় হয়ে যাচ্ছে, মাঠের চারপাশ জঙ্গলে ভরে

ছোট গল্প লেখার ৮ টি নিয়ম

শিক্ষণীয় বা, উপভোগ্য কোন ক্ষুদে গল্প, অণুগল্প বা, ছোট গল্প লেখার ক্ষেত্রে এই আটটি নিয়ম অনুসরণ করতে পারেন। আমরা এই ৮ টি নিয়মের ধারণা পেয়েছি বিখ্যাত আমেরিকান লেখাক Kurt Vonnegut এর দেয়া বর্ণনা থেকে।  শিবব্রত বর্মণ তাঁর একটি লেখায় বলেছেন, “দুনিয়ার সব লেখক এ বিষয়ে একমত হয়ে গেছেন যে গল্প লেখার কলাকৌশল কেউ কাউকে শিখিয়ে

বাংলা অনুবাদ নিমিষেই

যেকোন ভাষায় অনুবাদ করুন চোখের পলকে

যেকোন ভাষা থেকে খুব সহজেই আপনি চাইলে বাংলায় অনুবাদ  করতে পারবেন। ‍আবার বাংলা থেকেও যেকোন ভাষায় চোখের পলকে অনুবাদ করে ফেলা যায়। এর জন্য কোন বিশেষ ভাষাজ্ঞানের প্রয়োজন নেই। এই লেখাটি পড়লে এই পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারবেন। কৃত্তিম বুদ্ধিমুত্তা আপনাকে সাহায্য করবে Google Translate নামে গুগোলের অসাধারণ একটি প্রডাক্টের কথা নিশ্চয়ই আপনারা শুনে থাকবেন। এছাড়াও

হয়তো…….

কতবার মেলেছি দু-নয়ন ধরা দেয়নি সে ধরা দেয়নি হয়ত আমি বুঝিনি বোঝার হয়ত বয়স হয়েছিলো না বারবার সে আঘাত করে গেছে মনের মাঝে এখনও অনেক চির ধরে আছে তবু সে মুখে কিছুই বলেনি হয়ত আমি বুঝিনি বোঝার হয়ত বয়স হয়েছিলো না আজও তার চোখে হাজারো কবিতা নিঃশব্দে কান্না হয়ে ঝরে যা শোনাতে চেয়েও বুকের মাঝেই

কবিতা – ভালোবাসার অনুভূতি

ভালোবাসার অনুভূতি  — আলী সোহেল — আবার দেখা হলে চোখে চোখ রেখে বলবো ভালোবাসি। সেদিনের সেই অনুভূতি গুলো মনের কোনে ছবি আঁকবো, কি অপরুপ দৃশ্য আমার হাতের স্পর্শ গুলো বিলিয়ে দেবো তোমার সারা অঙ্গে। আবার দেখা হলে হাতে হাত রেখে বলবো ভালোবাসি। সবার মতো করে তোমায় চেয়ে নেবো কোন এক চাঁদনি রাতে। যা কিছু দেওয়ার

কবিতা – দুনিয়ার এই মঞ্চে

দুনিয়ার এই মঞ্চেে —-আলী সোহেল— দুনিয়াটা বদলে গেছে তুমিও বদলে গেছো অনেক আমি তো হয়নি বদল আমার দু-চোখ ভরা কজল। সহজ সরল মানুষ আমি দুনিয়ার এই মঞ্চে !! কেও বুঝেনা সেও বুঝেনা বাঁচবো আমি কোন  সে। এই দুনিয়ায় কত রঙ্গ কত রকম সঙ্গ , আগের মতই রয়ে গেছে আমার সারা অঙ্গ। শত শত স্বপ্ন ভঙ্গ,

কবিতা – বুকের ব্যাথা

  বুকের ব্যাথা  মোঃ আলী সোহেল কার সাধ্য আছে তোমাকে বুঝার তোমাকে চিনার মত কেও কি আছে? আমি আর কত কাল তোমাকে সইবো বুকের ভিতর ক্ষত ছিহ্ন বইয়ে বেড়াবো? তোমাকে না চিনার কষ্ট বয়ে যাবো – প্রতিদিন এক বেলা তোমার অবহেলা সইতে না পেরে বুকের ভেতর কষ্ট গুলো জমা করে নিঃশব্দে কেঁদেছি অবেলা, বিরহের জ্বালা,