আরজ আলী মাতুব্বর ছিলেন একজন স্বশিক্ষিত দার্শনিক

আরজ আলী মাতুব্বর বরিশালের একজন কৃষক এবং একজন মাতুব্বর ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি বিজ্ঞান, ইতিহাস, ধর্ম, দর্শন ইত্যাদি বিষয়ে পড়াশোনা করে একজন স্বশিক্ষিত দার্শনিক হয়ে ওঠেন। প্রচলিত ধর্মবিশ্বাস এবং আচরণ নিয়ে তিনি অনেকগুলো প্রশ্ন করেছেন এবং কিছু বিষয়ে নিজের মত ব্যক্ত করেছেন। 
বাংলা একাডেমীর আজীবন সদস্যপদ লাভ করা এই ব্যক্তিটি তার অর্জিত সম্পদ দিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘আরজ মঞ্জিল পাবলিক লাইব্রেরি’ নামে একটি পাঠাগার। তিনি উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর পক্ষ থেকে সম্মাননা এবং হুমায়ুন কবির সাহিত্য পুরষ্কার লাভ করেছিলেন। 
বরিশাল লাইব্রেরীর বইগুলো যখন তার জ্ঞানের চাহিদা মেটাতে পারছিলো না তখন কলেজের একজন শিক্ষক কলেজের লাইব্রেরীর বইগুলো ধার নেয়ার ব্যবস্থা করে দেন। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা স্কুলের গণ্ডিতে আবদ্ধ হলেও স্বশিক্ষিত আরজ আলী মাতুব্বর একজন উচ্চশিক্ষিত ব্যক্তি ছিলেন। 
তার বিখ্যাত বই ‘সত্যের সন্ধানে’। এই বইয়ে ৬৮ টি(কমবেশী হতে পারে) প্রশ্ন উপস্থাপন করেন। যেমনঃ 
  • আমি কে?
  • আমি কি মুক্ত ? 
  • মন এবং আত্মা কি একই জিনিস? 
  • কিভাবে শরীরে আত্মা প্রবেশ করে এবং বের হয় ? 

 আরজ আলী মাতুব্বরের একটি উক্তি-

কোন ব্যক্তি যদি একজন ক্ষুধার্তকে অন্নদান ও একজন পথিকের মাল লুন্ঠন করে ও অন্য কাউকে হত্যা করে অথবা একজন গৃহহীনকে গৃহদান করে এবং অপরের গৃহ করে অগ্নিদাহ, তবে তাহাকে ‘দয়াময় ‘বলা যায় না

আমরা এখানে আরজ আলী মাতুব্বরকে নিয়ে লিখছি কারণ তিনি ধর্ম নিয়ে অনেক প্রশ্ন তুলেছেন এবং সেগুলোর উত্তর খুঁজেছেন। এই ওয়েবসাইট ধর্ম সম্পর্কিত তথ্য দেয়, তাই তিনিও প্রাসঙ্গিক। এমন কোন কথা নেই যে তার সাথে একজন ধার্মিক হিসেবে আপনাকেও একমত হতে হবে। মাতুব্বর সাহেব সবকিছু সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্য কিংবা, বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণ সম্পর্কে জানতেন না। নির্দ্বিধায় বলতে পারি তিনি জ্ঞানী ছিলেন এবং সত্যের সন্ধান করেছেন। 
ছবির জন্য কৃতজ্ঞতাঃ greennewsbd 

 

(Visited 4 times, 1 visits today)
0
likeheartlaughterwowsadangry
0

Related Posts

যিশু খ্রিস্ট

যিশু খ্রিস্ট

যিশুকে বলা হয় নাজারাথের যিশু। খ্রিস্ট ধর্মের অনুসারীরা তাকে ঈশ্বরের পুত্ররূপী ঈশ্বর এবং মেসিয়াহ মনে করেন। তিনিই খ্রিস্ট ধর্মের কেন্দ্রীয়

নাস্তিকতাবাদ, অজ্ঞেয়বাদ এবং অন্যান্য মতবাদ

নাস্তিকতাবাদ বলতে আমরা এমন মতবাদকে বুঝি যেখানে ঈশ্বরের বা, কোন সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ব স্বীকার করা হয় না। এর বাইরে আরো কতগুলো

শিন্টো ধর্ম- জাপানের মানুষের ধর্মবিশ্বাস

শিন্টো ধর্ম বহুঈশ্বরবাদী একটি ধর্ম। শিন্টো শব্দের অর্থ দেবতার পথ। এই ধর্মে সৃষ্টিকর্তাকে বলা হয় কামি। অসংখ্য স্রষ্টার অস্তিত্ব আছে

হিন্দু ধর্মগ্রন্থ বেদ(pdf ফাইল) ডাউনলোড করে নিন

মোট চারটি বেদের অর্থাৎ ঋগ্বেদ, সামবেদ, যজুর্বেদ এবং অথর্ববেদ এর ডাউনলোড লিংক আমরা দিয়ে দেবো। আপনারা এখান থেকে ডাউনলোড করে

Leave a Reply