জঙ্গল ভমন

0

এক সময় বিশাল পাহাড়ের পাদদেশে একটি ছোট্ট গ্রাম ছিল। এই গ্রামে যতীন নামে এক যুবক বাস করত। যতীন ছিলেন একজন দুঃসাহসী শিশু যে তার গ্রামের চারপাশের জঙ্গল ঘুরে দেখতে পছন্দ করত।

একদিন, জঙ্গলে ঘুরে বেড়াতে গিয়ে যতীন একটি পুরানো, পরিত্যক্ত বাড়িতে হোঁচট খায়। বাড়িটি অন্ধকার এবং ভয়ঙ্কর ছিল এবং স্থানীয় গ্রামবাসীরা বিশ্বাস করেছিল যে এটি ভূতুড়ে ছিল। কিন্তু যতীন সাহসী এবং কৌতূহলী ছিলেন, তাই তিনি তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নেন।

ঘরে ঢুকতেই যতীন আঁচল থেকে অদ্ভুত আওয়াজ শুনতে পেল। সে চটকদার সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠেছিল এবং সাবধানে অ্যাটিকের দরজাটা খুলে দিল। অবাক হয়ে, তিনি দেখতে পেলেন কোণে লুকিয়ে থাকা একটি ছোট, জাদুকরী প্রাণী।

প্রাণীটি প্রথমে ভয় পেয়েছিল, কিন্তু যতীন আস্তে আস্তে লুকিয়ে রেখেছিল। প্রাণীটি নিজেকে টিকি হিসাবে পরিচয় করিয়ে দেয় এবং ব্যাখ্যা করে যে এটি একটি বনের স্প্রাইট যে হারিয়ে গেছে এবং তার পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

যতীন টিকির জন্য দুঃখিত বোধ করল এবং তাকে বাড়ির পথ খুঁজে পেতে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একসাথে, তারা অনেক চ্যালেঞ্জ এবং পথে বাধার মুখোমুখি হয়ে বনের গভীরে ভ্রমণ করেছিল। কিন্তু যতীনের দৃঢ় সংকল্প এবং টিকির জাদুকরী শক্তি তাদের সব বাধা অতিক্রম করতে সাহায্য করেছিল।

অবশেষে, অনেক দিন ভ্রমণের পরে, তারা বনের হৃদয়ে একটি সুন্দর পরিষ্কারের মধ্যে টিকির বাড়িতে পৌঁছেছে। টিকির পরিবার তাকে দেখে আনন্দিত হয়েছিল, এবং তারা যতীনকে খোলা অস্ত্র দিয়ে স্বাগত জানায়।

যতীন তার গ্রামে বীর হয়ে ফিরে আসেন, এমন কিছু সম্পন্ন করে যা অন্য কেউ করতে পারেনি। সেই দিন থেকে, যতীন জঙ্গল অন্বেষণ করতে থাকলেন, কিন্তু তিনি সর্বদা টিকি দ্য ফরেস্ট স্প্রাইটের সাথে তার আশ্চর্যজনক অ্যাডভেঞ্চারের কথা মনে রাখলেন।

 

বছরের পর বছর ধরে, যতীন তার গ্রামের চারপাশে জঙ্গল অন্বেষণ করতে থাকে, এবং সে অনেক নতুন জিনিস আবিষ্কার করে, যার মধ্যে রয়েছে বিরল গাছপালা এবং প্রাণী যা সে আগে কখনো দেখেনি। তিনি একজন সাহসী অভিযাত্রী এবং বনের সত্যিকারের বন্ধু হিসেবে গ্রামজুড়ে পরিচিতি লাভ করেন।

একদিন, ভ্রমণে যাওয়ার সময়, যতীন একদল গ্রামবাসীকে দেখতে পেল যারা নতুন বাড়ি এবং ব্যবসার জন্য জায়গা তৈরি করতে গাছ কেটে বন ধ্বংস করছে। যতীন যা দেখেছিল তাতে আতঙ্কিত হয়েছিল এবং জানত যে বন এবং এর বাসিন্দাদের রক্ষা করার জন্য তাকে কিছু করতে হবে।

তিনি গ্রামের প্রবীণদের সাথে কথা বলে বন ধ্বংস বন্ধ করতে রাজি করান। টিকি এবং অন্যান্য জাদুকরী প্রাণীর সাহায্যে, যতীন ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য বন সংরক্ষণের গুরুত্ব সম্পর্কে গ্রামবাসীদের শিক্ষিত করার জন্য একটি প্রচারাভিযানের নেতৃত্ব দেন।

অভিযানটি সফল হয়েছিল, এবং গ্রামবাসীরা বন ও এর বাসিন্দাদের রক্ষা করতে সম্মত হয়েছিল। যতীন বনের অভিভাবক হয়ে ওঠেন, এবং তিনি এর গভীরতা অন্বেষণ করতে থাকেন এবং আগামী বহু বছর ধরে এর সৌন্দর্য রক্ষা করতে থাকেন।

শেষ পর্যন্ত, অ্যাডভেঞ্চারের প্রতি যতীনের ভালবাসা এবং বন রক্ষায় তার উত্সর্গ অন্যদেরও একই কাজ করতে অনুপ্রাণিত করেছিল। গ্রামটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং বিস্ময়ের স্থান হিসাবে পরিচিত হয়ে ওঠে এবং যতীনকে একজন সত্যিকারের বীর হিসাবে স্মরণ করা হয় যিনি তার সাহসিকতা এবং দৃঢ়তার মাধ্যমে ইতিহাসের গতিপথ পরিবর্তন করেছিলেন।

যতীন বড় হওয়ার সাথে সাথে তিনি তার জ্ঞান এবং বনের ভালবাসা তরুণ প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেন। তিনি গ্রামের অনেক শিশুর পরামর্শদাতা হয়ে ওঠেন এবং তাদের প্রকৃতিকে সম্মান করার এবং পরিবেশ সংরক্ষণের গুরুত্ব সম্পর্কে শিখিয়েছিলেন।

বছর কেটে গেল, যতীন বৃদ্ধ হল, কিন্তু তার আত্মা বরাবরের মতই দুঃসাহসী এবং কৌতূহলী রয়ে গেল। একদিন, জঙ্গলে হাঁটতে হাঁটতে যতীন একটা লুকানো গর্তে হোঁচট খায় যা সে আগে কখনও দেখেনি। গ্রোভ অন্বেষণ করার সময়, তিনি একটি ছোট চারা লক্ষ্য করলেন যেটি মাটি থেকে সবেমাত্র অঙ্কুরিত হয়েছে।

যতীন জানতেন যে এই চারাটি বিশেষ, এবং তিনি নিজেই এটির যত্ন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। প্রতিদিন, তিনি গ্রোভ পরিদর্শন করতেন এবং চারাকে জল দিতেন, নিশ্চিত করে যে এটি প্রচুর সূর্যালোক এবং পুষ্টি পেয়েছে। সময়ের সাথে সাথে, চারাটি একটি লম্বা, মহিমান্বিত বৃক্ষে পরিণত হয় এবং যতীন যখনই এটি দেখেন তখনই তিনি গর্ব ও আনন্দ অনুভব করেন।

একদিন গাছের নিচে বসে যতীন বুঝতে পারলেন যে তিনি দীর্ঘ ও পরিপূর্ণ জীবন যাপন করেছেন। তিনি বন অন্বেষণ করেছিলেন, বন রক্ষা করেছিলেন এবং পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তার জ্ঞান প্রেরণ করেছিলেন। তিনি জানতেন যে বিদায় জানানোর সময় এসেছে, কিন্তু তিনি এই জেনে সন্তুষ্ট ছিলেন যে বনটি উন্নতি করতে থাকবে এবং যে গাছটি তিনি রোপণ করেছিলেন তার মাধ্যমে তার উত্তরাধিকার বেঁচে থাকবে।

যতীন গাছের নীচে শান্তভাবে চলে গেল, চারপাশে অরণ্যের সৌন্দর্য এবং বিস্ময় ঘেরা যাকে সে খুব ভালবাসত। গ্রামবাসীরা তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার নামে গ্রোভের নামকরণ করে এবং তার সম্মানে আরও গাছ লাগিয়েছিল।

আর তাই, যতীনের উত্তরাধিকার বেঁচে ছিল, যা আগত প্রজন্মকে প্রাকৃতিক জগতকে অন্বেষণ করতে, রক্ষা করতে এবং লালন করতে অনুপ্রাণিত করে।

যতীনের মৃত্যুর কয়েক বছর পরে, গ্রামটি বেড়ে ওঠে এবং পরিবর্তিত হয়। আরও বেশি লোক সেখানে বসবাস করতে এসেছিল, এবং নতুন ব্যবসা এবং প্রযুক্তির উদ্ভব হয়েছিল। কিন্তু যতীন যে জঙ্গল ও গাছ লাগিয়েছিলেন তা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও বিস্ময়ের অভয়ারণ্য হয়ে রইল।

গ্রামবাসীরা যতীনের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে থাকে বন ও গাছপালা রক্ষা করে। এমনকি তারা একটি বার্ষিক তৈরি করেছে


56
বিজ্ঞাপনঃ মিসির আলি সমগ্র ১: ১০০০ টাকা(১৪% ছাড়ে ৮৬০)

0

Ali Hossen

Author: Ali Hossen

নিচের লেখাগুলো আপনার পছন্দ হতে পারে

গল্প চেয়ারম্যানের মেয়ে আফছানা খানম অথৈ

চেয়ারম্যানের মেয়ে আফছানা খানম অথৈ মেহেরপুর একটি সুন্দর গ্রাম।এই গ্রামে কিছু অদ্ভুত নিয়মকানুন চালু আছে,যা অন্যকোন গ্রামে নেই।এই গ্রামে নারীরা

গল্প মেয়েরা ও মানুষ আফছানা খানম অথৈ

গল্প মেয়েরা ও মানুষ আফছানা খানম অথৈ রানু বউ হয়ে এসেছে চার পাঁচ মাস হলো।এরই মধ্যে তার স্বামী স্কলারশিপ এর

গল্প মেয়ে সাক্ষী আফছানা খানম অথৈ

মেয়ে সাক্ষী আফছানা খানম অথৈ আবিদ হায়দার বেড়াতে এসেছে গ্রামে তার বন্ধু ফুয়াদ'র বাসায়।অবশ্য সে একা না,তার সঙ্গে আছে,বন্ধু সজল

গল্প বন্ধ্যা আফছানা খানম অথৈ

গল্প বন্ধ্যা আফছানা খানম অথৈ আলেয়া বউ হয়ে এসেছে চার বছর হলো।এখনো মা হতে পারেনি। এজন্য রীতিমতো তাকে কটু কথা

Leave a Reply