বাবার হাসি

0

**********************************************

ফজরের আযানের ধ্বনি শোনার পর আমার যেই কাজ তা হলো,
বাবাকে জাগানো।
বাবাকে জাগিয়ে মেশওয়াক করার জন্য হাতের কাছে ডাল টা ধরিয়ে দেওয়া।
মেশওয়াক শেষে বাবা অযু করে নেয়।
বাবাকে পাঞ্জাবিটা পড়িয়ে নিজেও রেডি হয়ে নেই।
বাপ-বেটা মিলে একসাথে বেড়িয়ে যাই রবের ডাকে।
সালাত শেষে বাবা আর আমি নিয়ম করেই শিশির ভেজা ঘাসে হাটি।
সকালের নাস্তা রেডি করার সাথে সাথেই হাঁক পড়ে যায় টেবিলে যাওয়ার।
বাবা আমি আর আমার ছোট ছেলে তাশরীফ বসে যাই খাওয়ার প্রতিযোগিতায়।

প্রতিবারই বাবাকে খাইয়ে দেই।
এতে আমার হৃদয়টা অনেকটা পরিতৃপ্ত পায়।

হঠাৎ আমার ছেলে আমাকে অবাক করে প্রশ্ন করে,
-বাবা,দাদু তো নিজের হাতেই খেতে পারে তারপরেও তুমি দাদুকে খাইয়ে দাও?
গোসল করিয়ে দাও কেন?

ছেলের এমন প্রশ্ন শুনে মুচকি হেসে বললাম,

“তুমি যেদিন বড় হবে,আর আমি বৃদ্ধ হয়ে যাবো!
আমি খেতে পারার সামর্থ্য থাকলেও যেন তুমি আমাকে খাইয়ে দাও।যত্ন করো।
সেজন্য আমার জায়গাটা দখল করে নিচ্ছি আগে থেকেই।

উত্তর শুনে বাবার সে কি হাসি,নিষ্পাপ হাসি।
এই হাসিতে রয়েছে জান্নাতীয় সুখ।
ইচ্ছে করে সারাটা জীবন ধরে এই হাসিটা দেখে যাই।

গল্প – বাবার হাসি
রাবিয়াতুল জান্নাত স্মৃতি

 


আরো পড়ুন-


56
বিজ্ঞাপনঃ মিসির আলি সমগ্র ১: ১০০০ টাকা(১৪% ছাড়ে ৮৬০)

0

srettee Akter

Author:

নিচের লেখাগুলো আপনার পছন্দ হতে পারে

হাজার জন

একটাই পৃথিবী একটাই গান।অথচ তুমি আমার শুধু একজন। তুমি যদি একজন না হয়ে হাজার জন হতে তোমাকে অনেক বেশি ভালবাসতাম।তুমি

রাত বারটার সময় সে এসেছিল

রাত বারটার সময় সে আসে, ঠিক বারটা।এত রাত্রে আস কেন? রাত্রে না আসলে আমার ভাল লাগেনা। তাহলে বস, গল্প কর।গল্প

কাল

আজ ও কালের মধ্যে পার্থক্য কি?  কাল তুমি আমার ছিলে আজ তুমি আমার নয়।তাহলে? আজ যদি আবার কাল হয়ে যেত।আজ

কাঞ্চনজঙ্ঘা’

যদি তার নাম হয় সুন্দর তাকে আমি ভালবাসি। যদি তার নাম হয় অনামিকা তাকে আমি ভালবাসি যদি সে থাকে  কাঞ্চনজঙ্ঘা

2 Replies to “বাবার হাসি”

Leave a Reply