সুযোগ পেলেই–

 

পড়ালেখাটা ঠিকঠাক করি

স্কুলে যাই রেগুলার,

“পরীক্ষাতে কেন গুবলেট কর?”

অভিযোগ বাবা মা’র।

 

ভেবেছি দেখাব সুযোগ পেলেই

আমার মাথার জোর,

রেজাল্ট দেখেই বুঝবে কেমন—

পরীক্ষার উত্তর !

 

বাবার মাইনেতে মাস চলেনা

টানাটানি বারো মাস–

মাইনে বাড়াবো বস্‌কে পটিয়ে

যদি পাই অবকাশ।

 

রান্নাঘরের পাকে বাঁধা, মা’র–

ঘুরাঘুরির বড় সাধ,

সুযোগ পেলেই পড়ব বেড়িয়ে

মেটাব সব আহ্লাদ।

 

ভাইয়া কলেজ পেরিয়েছে কবে

ঝিম মেরে থাকে ঘরে,

সুযোগ পাইত দু-চারটা চাকরি

দেব ঠিক যোগাড় করে।

 

স্কুলের গেটে বুড়ো দারোয়ান

মুখ ভার করে বসে থাকে—

মন ভালো করার একটা কিছু

সুযোগে দেখাব তাকে।

 

বুয়া কাজ করে হাড়ভাঙ্গা তবু

বকাঝকে সবে করে,

ছেড়ে দাও কাজ, টাকা দেব ঢের

সুযোগে বোঝাব তারে।

 

বুড়িটা রোজ দুয়ারে এসে ডাকে

আঁচল তার দেয় পেতে–

সুযোগ পেলেই ‘দাদু’ করে নেব

দেবই না আর যেতে !

 

বাবা বকা দেয় পড়া নিয়ে বসে

চোখ ভরে জল আসে,

মন খারাপে, মা এসে কয়

“আছি আমি” ভালোবেসে।

 

পড়ার চাপে রাত জাগি, সাথে

মায়ের নাইকো ঘুম—

সুযোগ পেলেই জড়িয়ে আদরে

সারা গালে দেই চুম।

(Visited 36 times, 1 visits today)
1
likeheartlaughterwowsadangry
0

Related Posts

খুকীর আবদার

  চার বছরের খুকী ঘুমায় মা’র গল্প শুনে-- ঘুমিয়ে পড়ে, স্বপ্ন দেখে বাবাকে পড়ে মনে।   মাথার উপর মাঝ দেয়ালে

‘’অচেনা পথিক’’

“পথিক তুমি চলেছ কোথায় কোন পাড়াতে ঘর, একটু জিরোও, পথ বন্ধুর কে বা আপন,পর?   স্রোতস্বিনী নদীর মত চলছি অবিরাম--

এখন ও কি…

  দূর প্রবাসে পাঁচটি বছর যুগের মত লাগে, অর্থবিত্তে ভালই আছি তরল ভাবাবেগে।   অট্রালিকা, উঁচু দালান আকাশ অনেক দূরে--

বাবার আবদার

ব্যস্ত থাকি অফিস কাজে সন্ধ্যা নাগাদ ঘর, এই রুটিনে চলছে-ত বেশ জীবন নিরন্তর।   বাবুর স্কুলের পড়ার বোঝা রোজকার হোমওয়ার্ক--

Leave a Reply