খোকার ঘুম

0

 

মা শোনাল গল্প কত

ঘুমের দেশের গান,

ঘুম ত নাই খোকার চোখে

কল্প লোকের বাণ।

 

ঘুটঘুটে রাত তারার ঝলক

পূর্নিমারই রাত

সবাই ঘুমায়,খোকা জেগে

মা বসে তার সাথ।

 

নিদমহলের নীল পরীরা

ঘুম নিয়েছে কেড়ে–

“চাঁদের দেশে যাব আমি

নইলে-চাঁদটা দাও পেড়ে”।

 

“ডালিম কুমার কোন দেশেতে

কোথায় বা তার ঘর”?

প্রশ্ন কত খোকার মুখে

ভাবনা অবান্তর।

 

“সেই দেশেতে যাব আমি

সবুজ ঘোড়ার পরে

মুছব তাদের চোখের জলে

আসব নিয়ে ঘরে”।

 

“দেও পরী আর দৈত্য দানব

সামনে যদি আসে

তীর ঘনুকে করব ঘায়েল

ফিরব বিজয় শেষে”।

“আকাশটাকে ঘর বানাব

রোদের রঙ মেখে,

মা ছেলেতে থাকব দুজন

ঘুম পাড়িও বুকে”।

 

“কংকাবতী, ডালিমকুমার

সবাই বন্ধু হবে–

মেঘের ঢালে খেলব মিলে

সুখে, মহোৎসবে”।

 

মা হেসে কয়- “কি সব বলিস?

এবার ঘুমাও তবে—“

“ঘুমাই যদি পঙ্খীরাজে

উড়াল দিব কবে”?

 

“সাত সাগরের ওপার যাব

কি আছে ঐ খানে?

তোমায় নেব, খুঁজব দু’জন

অজানা গুপ্তধনে”।

 

ক্লান্তি নামে মায়ের চোখে

ঘুমাল এবার খোকা

গভীর হল রাতের আঁধার

মা জেগে রয় একা।

 

আরো পড়ুন-

0

MD MOINUL ISLAM

Author: MD MOINUL ISLAM

Related Posts

পেয়ারীর রায় — সুজন চন্দ্র দাস

অপরাধ করার পরও অপরাধী যতটুকু না শাস্তি পায় কাউকে সত্যিকার ভালোবেসে অধিক শাস্তি হয় পেয়ারীর রায়; মানুষ তার প্রেমেই পড়ে

ভারত মাতা- Dipankar Saha (Deep)

নমঃ নমঃ নমঃ      ভারত মাতা। তব চরণে করি     নত মাথা।। তুমি আমাদের   জন্মদাতা- এই জীবনের শক্তিদাতা।। দুঃখ
হাসপাতালের শয্যা- কবিতা

হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি  – সুজন চন্দ্র দাস

আমি হাসপাতালের শয্যা থেকে বলছি দিন শেষে বলি, এইতো আরো একটা দিন বেঁচে গেছি নরকের যন্ত্রণা সহ্য করে বেঁচে আছি
পঞ্চকবি, পঞ্চপান্ডব, অমিয় চক্রবর্তী, বিষ্ণু দে, বুদ্ধদেব বস্য, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, জীবনানন্দ দাস

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চপান্ডব এবং পঞ্চকবি

বাংলা সাহিত্যের পঞ্চকবি এবং পঞ্চপান্ডব রয়েছে।  পঞ্চপান্ডব বলে পরিচিত কবিরা রবীন্দ্রনাথের জীবদ্দশায় রবীন্দ্র বলয়ের বাইরে গিয়ে কবিতা রচনা করেছিলেন। এই পাঁচজন

Leave a Reply